শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্র চলছে: তথ্যমন্ত্রী

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্র চলছে: তথ্যমন্ত্রী
তথ্যমন্ত্রী - ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:২৬

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্র চলছে বলে দাবি করেছেন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় শিল্পকলায় ‘শেখ হাসিনা: বাংলাদেশের স্বপ্নসারথী’ শিরোনামে আলোকচিত্র ও শিল্পকর্মের মাসব্যাপী প্রদর্শনী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিরোধীদের প্রতি তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যখন তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়, তখন কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পথ বেছে নেয়। আজকেও শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে পারতো। কিন্তু রাজনৈতিকভাবে ক্রমাগতভাবে তারা পরাজিত হয়েছে। তাই তারা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছে। আজকে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্র আছে।

মন্ত্রী বলেন, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আক্ষেপ করে বাংলাদেশের উন্নয়নের কথা বলেন। আজকে সমস্ত সূচকে বাংলাদেশ পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে বহুদূর এগিয়েছে। আমরা অনেক সূচকে ভারতকে ও পেছনে ফেলেছি। বিশেষ করে সামাজিক সূচক এবং মানব উন্নয়ন সূচকে।

তিনি বলেন, আজকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ গত সাড়ে ১০ বছরের মধ্যে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি পৃথিবীতে সর্বোচ্চ। গত এক দশকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি যা ছিল সেটি এশিয়ার মধ্যে সর্বোচ্চ। আজকে পৃথিবীতে শুধু অবাক করে দিয়ে নয় বিশ্ব খাদ্য সংস্থাকেও অবাক করে দিয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশে রূপান্তরিত হয়েছে। আমরা মৎস্য উৎপাদনে পৃথিবীতে চতুর্থ। ছোট্ট দেশ এভাবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে সক্ষমতা প্রদর্শন করেছে এটি আজকে পৃথিবীর সামনে একটি উদাহরণ। সমস্ত বিশ্ব নেতারা আজকে প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার চলার পথ কখনো মসৃণ ছিল না। তাকে একে একে ১৯ বার হত্যা করার অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। কিন্তু তিনি বারবার মৃত্যু উপত্যকা থেকে ফিরে এসেছেন। দ্বিধান্বিত হননি, বিচলিত হননি বরং তিনি আরো প্রত্যয়ে বাংলাদেশের মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের কাফেলাকে এগিয়ে গেছেন।’

সভাশেষে তথ্যমন্ত্রী অতিথিদের সাথে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার স্বপ্নের বাংলাদেশের ওপর চিত্র ও শিল্পকর্মগুলো নিবিষ্টভাবে ঘুরে দেখে শিল্পীদের প্রশংসা করেন।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads





Loading...