ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে : ছাত্রলীগ

সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়
সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় - ছবি: প্রতিবেদক।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:০৯,  আপডেট: ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:৫০

নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সকল প্রকার ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় প্রত্যেক ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে ছাত্রলীগের ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল-নাহিয়ান খান। তিনি বলেন, আবরার হত্যাকাণ্ডের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটিকে পুঁজি করে কেউ যেন দলীয় রাজনীতি চাঙা করার নামে আন্দোলন-আন্দোলন খেলায় মেতে উঠতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। হীন স্বার্থসিদ্ধির জন্য পরিকল্পিত লাশ ফেলে সন্ত্রাস কায়েম করতে না পারে, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বিনষ্ট করতে না পারে সে বিষয়ে সজাগ থাকা ছাত্রসমাজের নৈতিক দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনে অতীতের ন্যায় আগামীতেও ছাত্রলীগ অকুতোভয় হয়ে ছাত্রসমাজের পাশে থাকবে।

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডের প্রেক্ষিতে গৃহীত ব্যবস্থার পর্যালোচনা এবং হত্যাকারীদের দ্রুততম সময়ে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়, গত ৭ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরে বাংলা হলে সংঘটিত এক ন্যাক্কারজনক ঘটনায় বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ নৃশংসভাবে হত্যাকাণ্ডের স্বীকার হয়। এ হত্যাকাণ্ডটি মুহূর্তে ছাত্রসমাজসহ প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে প্রচণ্ডভাবে নাড়া দেয়। আবরারের বাবা-মার মুখে সকলে নিজের বাবা-মায়ের প্রতিচ্ছবি খুঁজে পায়। আবরারের ছোট ভাইয়ের অসহায় চাহনির ভিতর নিজের অন্তরজ্বালা অনুভব করে। হত্যাকাণ্ডটির সাথে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বুয়েট শাখার কতিপয় নেতৃবৃন্দের সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠায় দ্রুততার ভিত্তিতে নানামুখী সাংগঠনিক পদক্ষেপ গৃহীত হয়।

ঘটনার পরপরই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে হত্যার সাথে জড়িতদের সকল প্রকার পরিচয়ের ঊর্ধ্বে উঠে বিচারের দাবী জানিয়ে আনুষ্ঠানিক শোক প্রকাশ ও নিন্দা জ্ঞাপন করে ছাত্রলীগ। পাশাপাশি হত্যাকাণ্ডের সাথে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কতিপয় নেতৃবৃন্দের সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠায় দুই সদস্য বিশিষ্ট একটি সাংগঠনিক তদন্ত কমিটি গঠন এবং কমিটিকে ২৪ ঘণ্টার ভিতর রিপোর্ট জমাদানের নির্দেশ প্রদান করা হয় এবং নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বেই তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রাপ্তির প্রেক্ষিতে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের ১১ জনকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়।

আল-নাহিয়ান খান জয় বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ একটি ঐতিহাসিক ছাত্র সংগঠন। বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান থেকে শুরু করে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে এ সংগঠনের ১৭ হাজার নেতাকর্মী বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ অবধি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার নামে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অসংখ্য নেতাকর্মীকে প্রাণ দিতে হয়েছে রাষ্ট্রীয় বাহিনী এবং ছাত্রশিবির, ছাত্রদল, জামায়াত, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আক্রমণ ও হামলার শিকার হচ্ছে। এরপরও সাংগঠনিকভাবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কখনোই কোন প্রকার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডকে প্রশ্রয় দেয় না, উৎসাহ প্রদান করে না।

তিনি বলেন, সংগঠনের পরিচয়-পদবি ব্যবহার করে কতিপয় ব্যক্তির অতি উৎসাহী হয়ে সংঘটিত কোন কর্মকাণ্ডকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অতীতের ন্যায় বর্তমানে এবং ভবিষ্যতেও প্রশ্রয় দিবে না। সম্প্রতি সংঘটিত আবরার হত্যাকাণ্ডে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আবারও তা প্রমাণ করেছে। আমাদের আদর্শিক নেত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশ, ‘অপরাধীর কোন দল নেই’ কথাটি অক্ষরে অক্ষরে পালনই আমাদের প্রধান কর্তব্য। একইসাথে এই ঘটনা পরবর্তীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ছাত্রলীগসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে তড়িৎ, নৈর্ব্যক্তিক, নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন ও পদক্ষেপ গ্রহণের যে নির্দেশনা প্রদান করেছেন তা থেকে বিন্দুমাত্র বিচ্যুত হবার অভিপ্রায় ও দুঃসাহস আমাদের নেই। বাংলাদেশের ছাত্রসমাজের প্রতি দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্পষ্ট নির্দেশনা, ‘আমার চোখে সকল অপরাধী সমান, অপরাধী যেই হোক তাকে শাস্তি পেতেই হবে। আবরার হত্যাকাণ্ডে জড়িত কেউ ছাড় পাবে না’।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত এজাহারভুক্ত ১৯ জনের মধ্যে ১৩ জনকে গ্রেফতার করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আরো দাবী জানাই, পলাতক অপর অভিযুক্তদেরও যেন স্বল্প সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। একইসাথে এজাহারভুক্ত ১৯ জনের বাহিরে আরও যদি কেউ এই হত্যাকাণ্ডের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকে তাদেরও যেন অনুসন্ধানের মাধ্যমে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হয়। এ পুরো প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে যদি কোন সহযোগিতা প্রয়োজন হয় তা নিঃশঙ্কচিত্তে সর্বোচ্চটুকু করার জন্য আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। পাশাপাশি, সাংগঠনিক তদন্ত প্রক্রিয়া সম্পাদনের সময় শেরে বাংলা হল কর্তৃপক্ষের যে উদাসীনতা ও দায়িত্বহীন ভূমিকা দৃষ্টিগোচর হয়েছে আমরা সে বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণেরও আহ্বান জানাই।

দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য যেন ‘আবরার হত্যা মামলা’টি দ্রুত বিচার আইনের আওতায় এনে সম্পন্ন করা হয়। এবং হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত প্রত্যেকের যেন সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা সম্ভব হয় সে উপযোগী করে পুরো মামলাটি পরিচালনা করার আহ্বানো জানানো হয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে।

উদ্বেগে প্রকাশ করে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আরো বলেন, আবরার হত্যাকাণ্ড পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকার, বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ দায়িত্বশীলতার পরিচয় প্রদানের পরও এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার সাংগঠনিক অবস্থান পরিষ্কার করার পরেও কিছু কুচক্রী মহল ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধকরণ, বিভিন্নভাবে ধর্মীয় উন্মাদনা ছড়িয়ে দেশে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, তারা দেশবিরোধী চুক্তির ধোঁয়া তুলে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে হেয় প্রতিপন্ন করার প্রচেষ্টা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি ও কটুক্তিমূলক বক্তব্য প্রদান প্রভৃতির মাধ্যমে কতিপয় নামসর্বস্ব, কর্মী ও কর্মসূচী বিহীন, ব্যানার নির্ভর ছাত্র সংগঠন ও সেসব সংগঠনের নেতৃবৃন্দ যে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরির চেষ্টা করছে। ধারাবাহিক উস্কানির মাধ্যমে যে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। বিগত ১১ বছরে সেশনজটবিহীন নির্বিঘ্ন শিক্ষা পরিবেশ বিনষ্টের যে ষড়যন্ত্র রচনা করছে তা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কোনমতেই মেনে নিতে পারে না। দেশের ছাত্রসমাজকে সাথে নিয়ে এসব হীন কর্মকাণ্ড সর্বাত্মকভাবে মোকাবেলা করবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, সন্ত্রাসী বা অপরাধীর কোনো সাংগঠনিক পরিচয় নেই। ছাত্রলীগের নীতি-আদর্শের বাইরে কোনো ব্যক্তির অপকর্মের দায় সংগঠন নেবে না। বুয়েটের ঘটনায় সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বাকিটা আইন-আদালতের কাজ। কেউ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সংগঠনে অনুপ্রবেশ করে থাকলে তারা যেন কেটে পড়েন। কোনো ধরনের অপরাধকে ছাত্রলীগ প্রশ্রয় দেবে না।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ

 

 




Loading...
ads




Loading...