সাড়ে ১২শ কোটি টাকা ধার নিলো দুই ব্যাংক


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:১৯

তারল্য সংকটে পড়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে আরও ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে দেশের দুই ইসলামি ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, গত মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে  ৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয় ৫ ইসলামি ব্যাংক।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ ও গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক মঙ্গলবারও বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছে। এ ছাড়া, বাকি ৩ ব্যাংক হলো— সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ও ইউনিয়ন ব্যাংক।

এই ৫ ব্যাংকের পরিচালনা বোর্ডই চট্টগ্রামভিত্তিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান এস আলম গ্রুপের নিয়ন্ত্রণাধীন।

গত সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ঘোষণা অনুযায়ী, ইসলামিক ব্যাংক লিকুইডিটি ফ্যাসিলিটি'র অধীনে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই স্বল্পমেয়াদি ঋণ পরিশোধের সময়কাল হবে ১৪ দিন। এই প্রথম এমন উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

ঋণ প্রদানের অনিয়মের অভিযোগের ওঠার পর থেকেই গ্রাহকরা শরিয়াহভিত্তিক এই ব্যাংকগুলো থেকে আমানত তুলে নিচ্ছে। এতে ব্যাংকগুলো চাপ ও তারল্য সংকটে পড়েছে।

চলতি বছর ইসলামী ব্যাংক নিয়ম লঙ্ঘন করে ৯ কোম্পানিকে ৭ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সেই অভিযোগ তদন্ত করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

দেশে ১০টি শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংক রয়েছে এবং চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত মোট ব্যাংকিং সেক্টরের আমানতের ২৬ দশমিক ১৯ শতাংশই ওই ব্যাংকগুলোতে হয়েছে।

ইসলামী ব্যাংকের আমানত এই বছরের জুন পর্যন্ত ৪ লাখ ১২ হাজার ৩৪১ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা আগের বছরের একই মাসের তুলনায় ১২ শতাংশ বেশি।

চলতি বছরের জুনের শেষের দিকে পুরো ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণের ২৮ দশমিক ৫২ শতাংশ ছিল ইসলামী ব্যাংক থেকে দেওয়া। এই ঋণকে ইসলামী ব্যাংক বিনিয়োগ বলে থাকে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ইসলামী ব্যাংকগুলোর মোট বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৮১ হাজার ৮২৯ কোটি টাকায়, যা গত বছরের তুলনায় ১৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ বেশি। গত বছরের তুলনায় এ বছরের এপ্রিল-জুনে ঋণ বিতরণও বেড়েছে।

১০টি পূর্ণাঙ্গ ইসলামী ব্যাংক ছাড়াও, বেশ কয়েকটি প্রচলিত ব্যাংকও আমানতকারীদের আকৃষ্ট করতে শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংকিং পরিষেবা চালু করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে, বাংলাদেশে ইসলামী আর্থিক সেবা প্রদানের জন্য ৯টি প্রচলিত বাণিজ্যিক ব্যাংকের ৪৫টি ইসলামী ব্যাংকিং শাখা রয়েছে এবং ১৩টি প্রচলিত বাণিজ্যিক ব্যাংকের ৪৮০টি ইসলামী ব্যাংকিং শাখা রয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এআই


poisha bazar