এবারও বিদেশিদের হজ পালনে নিষেধাজ্ঞার পরিকল্পনা সৌদির


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৫ মে ২০২১, ২১:৩৩

চীন থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃত্যুুর মিছিল বেড়েই চলেছে। সারাবিশ্বে মহামারি এই ভাইরাসের তাণ্ডব বাড়ায় ও ঊর্ধ্বগতি সংক্রমণের আশঙ্কায় এ বছরও হজে অংশগ্রহণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে পারেন বিশ্বের অন্য দেশের মুসলিমরা।

গত বছরের মতো এ বছরও দেশটির শুধু স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য পবিত্র হজের অনুমতি সীমিত রাখার পরিকল্পনা করছে সৌদি সরকার।

বুধবার (৫ মে) বার্তা সংস্থা রয়টার্স সৌদি আরবের দুটি সরকারি সূত্রের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে ।

জানা গেছে, সৌদি আরবের নাগরিক ও বাসিন্দাদের মধ্যে যারা করোনা প্রাতিরোধী টিকা নিয়েছেন অথবা হজের কয়েক মাস আগেই মহামারি এই করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন, কেবল তারাই এ বছর হজের অনুমতি পাবেন।

অবশ্য সূত্র বলেছে, বিদেশি হজযাত্রীদের ওপর সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আলোচনা চলছে ঠিকই তবে তা অনুসরণ করা হবে কি না সে বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

সংশ্লিষ্ট দুটি সূত্র জানিয়েছে, বিদেশি হজযাত্রীদের অনুমতি দেয়ার ব্যাপারে পূর্বপরিকল্পনা বাতিল করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। এক্ষেত্রে স্থানীয়দের মধ্যে যারা টিকা নিয়েছেন অথবা হজের অন্তত ছয় মাস আগে করোনামুক্ত হয়েছেন, কেবল তাদেরই অনুমতি দেয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

একটি সূত্র বলেছে, বয়সের ভিত্তিতেও হজযাত্রীদের ওপর বিভিন্ন বিধিনিষেধ থাকবে।

দ্বিতীয় সূত্রমতে, প্রথমদিকে করোনার ভ্যাকসিন নেয়া কিছু বিদেশিকে হজযাত্রীদের ক্ষেত্রে হজের অনুমতি দেয়ার পরিকল্পনা ছিল সৌদি কর্তৃপক্ষের। কিন্তু টিকার ধরন ও কার্যকারিতা নিয়ে সন্দেহ এবং করোনার নতুন ধরনের বিস্তার বিবেচনায় সেই পরিকল্পনা বাতিল করা হয়েছে। তবে বিদেশিদের হজের অনুমতি না দেয়া প্রসঙ্গে এখনও কোনও মন্তব্য করেনি সৌদি সরকার।

উল্লেখ্য, করোনা মহামারির আগে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতি বছর প্রায় ২৫ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলিম হজ করতে মক্কা-মদিনায় যেতেন। হজ ও ওমরাহ থেকে বার্ষিক প্রায় ১২ বিলিয়ন ডলার আয় হতো সৌদি সরকারের। কিন্তু করোনা মহামারি ঊর্ধ্বগতি সংক্রমণের আশঙ্কায় গত বছর শুধু কয়েক হাজার স্থানীয়কে হজের অনুমতি দেয় সৌদি সরকার।

মানবকণ্ঠ/এমএ


poisha bazar

ads
ads