12 12 12 12
দিন ঘন্টা  মিনিট  সেকেন্ড 

চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭

চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭
চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ - ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৩ জানুয়ারি ২০২০, ১৬:৪৮,  আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:৫৮

চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ জনে দাঁড়িয়েছে। আর দেশজুড়ে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০০ জন।

এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই চিন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ইউহান। এই প্রদেশ থেকে ফেরি, ট্রেন, বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। বিমানবন্দরে জারি করা হয়েছে সতর্কতা। এছাড়া ইউহানের চিনা নববর্ষের উৎসবও বন্ধ করা হয়েছে।

রাজধানী বেইজিং ও সাংহাই-এর মতো শহরেও আক্রান্ত ব্যক্তি পাওয়ার কথা জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। সংক্রামক এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ চিকিৎসাকর্মী রয়েছেন।এ ভাইরাসটি ছড়িয়েছে মূলত চীনের উহান শহর থেকে।

চীন ছাড়াও থাইল্যান্ডে দু’জন, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও তাইওয়ানে একজন করে আক্রান্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়েছে। তারা সবাই চীনের উহান শহর থেকে নিজ দেশে ফিরেছিলেন। উদ্ভত পরিস্থিতিতে ভাইরাসটির ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বিশ্বজুড়ে নজরদারি জোরদার করা হয়েছে।

বিভিন্ন দেশের বিমানবন্দরে যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে। বিশেষ করে চীন ফেরত যাত্রীদের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখা হচ্ছে। সামগ্রিক পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সতর্কতা জারির বিষয়টি বিবেচনা করতে বুধবার বৈঠকে বসছে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

করোনা ভাইরাস কী?

করোনা ভাইরাস নোবেলা করোনা প্রকৃতির ভাইরাস। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি আসলে ফ্ল্যাবিও ভাইরাস, যা দ্রুত সংক্রামিত হয়। চিনের ইউহানের প্রথম করোনা সংক্রণের ঘটনা নজরে আসে। তারপর থেকে নতুন নতুন জায়গাতেও ভাইরাস সংক্রমণের ঘটনা ঘটে চলেছে।

করোনার কোথায় উ‍ৎপত্তি

চিনের ইউহান প্রদেশে প্রথম করোনা ভাইরাসের খোঁজ পাওয়া যায়। ইউহানের মাছের বাজার থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়েছে বলে জানা গেছে। এই অঞ্চলেই বেশিরভাগ সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে, এতে কয়েক'শ মানুষ সংক্রমণের শিকার হয়েছে। চিনে ইতিমধ্যেই ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মূলত গবাদি পশু থেকে ছড়ায় বলে করোনার ক্ষেত্রে বিপদ অনেক বেশি।

কীভাবে ছড়ায়

পশু-পাখি ও গবাদি পশুর সংস্পর্শে থাকা মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশি। পশুর লোম, মল থেকেই এই ভাইরাস সংক্রমণের প্রবণতা বেশি। সরাসরি মানুষের দেহে সংক্রমিত হয় এই ভাইরাস, মানুষ থেকেও পশুর দেহে ছড়াতে পারে।

উপসর্গ ও লক্ষণ

প্রাথমিকভাবে সর্দি, কাশি থেকে নিউমোনিয়া। সঙ্গে প্রবল জ্বর, শ্বাসকষ্ট। এটাই প্রাণঘাতী হয়ে ওঠে। এতে অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে না বলে এই ভাইরাস কাবু করা কঠিন। প্রাথমিকভাবে এর উপসর্গও বোঝা কঠিন।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads






Loading...