• বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০
  • ই-পেপার
12 12 12 12
দিন ঘন্টা  মিনিট  সেকেন্ড 

পুঁটি মাছ ও কাঁকড়া

বাসু দেব নাথ

মানবকণ্ঠ
ছবি - সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২০ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:০৯,  আপডেট: ২০ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:১৮

একদা ঝিলের পানিতে বসবাসকারী একটি পুঁটি মাছ ও একটি কাঁকড়ার খুব ভালো বন্ধুত্ব ছিল। পুঁটি মাছ ছিল খুবই হিংসুটে স্বভাবের। পানির নিচে পুঁটি মাছ অতিদ্রুতগতিতে চলেফেরা করতে পারত কিন্তু কাঁকড়া তত দ্রুতগতিতে চলতে পারত না। এই নিয়ে কাঁকড়ার কোনো আক্ষেপ ছিল না। তারা সবসময় ঝিলের আনে-কোনে ঘুরে বেড়াত। একসাথে খাওয়া-দাওয়া করত। পানির নিচে গল্প-গুজব করত। কিন্তু প্রতিদিন বিকালে কাঁকড়া পানির উপরে গিয়ে তার অন্য বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করত যা পুঁটিমাছ পারত না।

তাই সে অনেক ঈর্ষান্বিত হয় কাঁকড়ার প্রতি এবং তার মনে হিংসার জন্ম নেয়। প্রতিদিনের মতোই কাঁকড়া বিকেলে পানি থেকে উঠে ঝিলের পাড়ে ঘুরতে বের হয়। পুঁটি মাছও পানির উপরে গিয়ে কাঁকড়ার মতো ঘুরতে চায়। কাঁকড়া ঝিলের পাড়ে যাওয়ার দৃশ্য তার আর সহ্য হয় না। সে হিংসার চরম পর্যায়ে চলে যায় এবং কাঁকড়া পানি থেকে পাড়ে উঠার একটু পরেই পুঁটি মাছ জোরে পানি থেকে ঝিলের পাড়ে লাফিয়ে পড়ে কিন্তু মাছ পানি ছাড়া বাঁচতে পারে না তাই খুব শিগগিরই পুঁটি মাছের মৃত্যু হয়।

কাঁকড়া বন্ধুর মৃতদেহ দেখে অনেক কষ্ট পেল এবং কান্না করতে করতে বলতে লাগল ‘ঈশ্বর যাকে যা দিয়েছে তাতেই সন্তুষ্ট থাকা উচিত, আমিও পানির নিচে জোরে চলতে পারতাম না কিন্তু আমি হিংসা করিনি। অন্যের প্রাপ্তি বা সুখে আমাদের কখনো হিংসা করা উচিত নয়। অন্যকে হিংসা করার মাধ্যমে আমরা মূলত নিজেরই ক্ষতিসাধন করি।’

মানবকণ্ঠ/জেএস

 




Loading...
ads






Loading...