জাতিসংঘের সামনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির বিক্ষোভ


  • সংবাদদাতা, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৮:৫১,  আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৯:০৪

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে গত ২৩ সেপ্টেম্বর দুপুরে ভাষণ দেন। প্রধানমন্ত্রী যখন জাতিসংঘে ভাষণ দিচ্ছেন ঠিক সেই সময় জাতিসংঘের বাইরে বিক্ষোভ এবং প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি এবং যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির অঙ্গ সংগঠন।

সদ্য ঘোষিত নিউইয়র্ক মহানগর বিএনপির (উত্তর) আয়োজনে এই বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ সমাবেশে নিউইয়র্ক ছাড়াও বিভিন্ন স্টেটের বিএনপির নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। বিক্ষোভ এবং প্রতিবাদ সমাবেশে নিউইয়র্ক ছাড়াও কানাডা, নিউজার্সি, ওয়াশিংটন, কানেকটিকাট, মেরিল্যান্ড, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, টেক্সাস, পেনসিলভেনিয়াসহ বিভিন্ন স্টেটের বিএনপি নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে শত শত নেতাকর্মীর স্লোগানে স্লোগানে পুরো এলাকা প্রকম্প্রিত হয়ে ওঠে। তাদের স্লোগানের মধ্যে ছিল খালেদা জিয়া ভয় নেই রাজপথ ছাড়ি নাই, এক জিয়া লোকান্তরে লক্ষ জিয়া ঘরে ঘরে। আর নয় প্রতিবাদ এবার হবে প্রতিরোধ। ভারতের দালালরা হুঁশিয়ার সাবধান। গো ব্যাক গো ব্যাক শেখ হাসিনা গো ব্যাক। গণতন্ত্র হত্যাকারী শেখ হাসিনার সরকার। অবৈধ সরকার শেখ হাসিনার সরকার, ভোট চোর সরকার শেখ হাসিনার সরকার, নিশিরাতে সরকার শেখ হাসিনার সরকার। মুক্তি চাই মুক্তি চাই খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, মুক্তি চাই মুক্তি চাই তারেক রহমানের মুক্তি চাই- ইত্যাদি।

বিক্ষোভ সমাবেশে সবার দৃষ্টি কেড়েছে একটি কফিনের দিকে। সেখানে লেখা ছিলো বাংলাদেশ ডেমক্র্যাসি ইজ লকড ইন এ কফিন। বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজনের সহযোগিতায় ছিলো মহানগর বিএনপি দক্ষিণ এবং নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপি। এ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সুবর্ণ জয়ন্তী কমিটিও বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণ করে।

মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আহবাব চৌধুরী খোকনের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব ফয়েজ চৌধুরীর পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সুবর্ণ জয়ন্তী কমিটির আহবায়ক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সদস্য সচিব মিজানুর রহমান মিল্টন ভুইয়া, সুবর্ণ জয়ন্তী কমিটির কেন্দ্রীয় কমিটর সদস্য ও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ সম্রাট, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসীম ভূইয়া, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম, গোলাম ফারুক শাহীন, কাজী শাখাওয়াত হোসেন আজম, ফিরোজ আহমেদ, আব্দুস সবুর, হেলাল উদ্দিন, ছৈয়দুল হক, ফারুক হোসেন মজুমদার, নিউজার্সির বিএনপি (নর্থ) সভাপতি সৈয়দ জুবায়ের আলী, কানেকটিকাট বিএনপির সভাপতি তৌফিকুল আম্বিয়া টিপু, ওয়াশিংটন বিএনপির সভাপতি হাফিজ খান সোহায়েল, মেম্বার সেক্রেটারি জাকির হোসেন, মেরিল্যান্ড বিএনপির আহ্বায়ক শাহীদ খান চৌধুরী, মেম্বার সেক্রেটারি সেলিম এম হোসেন, ফ্লোরিডা বিএনপির আহবায়ক এনামুল হক চাকলাদার, সেক্রেটারি ইলিয়াস খান, নিউজার্সি বিএনপির (সাউথ) প্রেসিডেন্ট সৈয়দ কাওসার, সেক্রেটারি বাবুল রহমান, ভার্জিনিয়া বিএনপির আহবায়ক জাকির খান, মেম্বার সেক্রেটারি তোফায়েল আহমেদ, টেক্সাস বিএনপির আহ্বায়ক সাঈদুল হক সাঈদ, সাধারণ সম্পাদক এহসানুল হক, কানাডা বিএনপির সাবেক সভাপতি ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী, যুব দলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ আহমেদ, আবুল কাশেম, আমানত হোসেন আমান, মিজানুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার মাঈন উদ্দিন, জাবেদ উদ্দিন, এমদাদ তরফদার, চৌধুরী মোমিত তামিম, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক এম এ বাতিন, আতিকুল হক আজাদ, রেজাউল আজাদ ভূইয়া, যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার সায়েম, সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর সরোওয়ার্দী, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম জনি, শাহবাজ আহমেদ, শ্রমিক দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর এম আলম, আবুল কাশেম, আবুল কালাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ চৌধুরী, সাইফুর খান হারুন, নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির আহ্বায়ক মাওলানা অলিউল্যাহ আতিকুর রহমান, সদস্য সাইদুর রহমান সাঈদ, এবাদ চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম চৌধুরী, নাসিম আহমেদ, বদরুল হক আজাদ, কায়সার আহমেদ, নীরা রাব্বানী, দেওয়ার কাওসার, হুমায়ুন কবীর, আশরাফ হোসেন, আরিফুর রহমান, আনিসুর রহমান, রিয়াজ মাহমুদ, মশিউর রহমান, মোতাহার হোসেন, গোলাম হোসেন, মাহবুবুর রহমান, মিয়া আলিম পাখি, ভিপি জসীম, ইঞ্জিনিয়ার তাজুল ইসলাম, আলমগীর হোসেন, হাবিবুর রহমান, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা, ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব সাঈদুর খান ডিউক, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সোহরাব হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক এমলাখ হোসেন ফয়সল, রুহুল আমিন নাসির, আলমগীর মৃধা, জিয়াউল হক মিশন, নাসির উদ্দিন, শাহাদত হোসেন রাজু, রিপন মিয়া, কামাল উদ্দিন দীপু, জোহরা বেগম, রেজবুল কবীর, শের জহির, আবু তাহের, এডভোকেট আরিফ চৌধুরী, গোলাম এম হায়দার মুকুট, আজিজুল বারী তিতাস, সুমন সর্দার, কৃষিবিদ মোহাম্মদ সোলায়মান, কামাল হোসেন হালদার, আব্দুল মান্নান হোসেন, শাখাওয়াত আজাদ, তরিকুল ইসলাম প্রিন্স, সুলতান আহমেদ ভুইয়া, জামাল হোসেন, মোহাম্মদ মহসীন, নূর এ আলম, শরিফ চৌধুরী পাপ্পু, আব্বাস উদ্দিন, ফারিদ রনি, মিজানুর রহমান মিজান, মাহরুফ আহমেদ, হাসান আহমেদ, মোহাম্মদ হাসান, নূরুল হুদা, নাজমুল করিম কিরণ, জামাল রহমান চৌধুরী। মহানগর উত্তর বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এজিএম জাহাঙ্গীর হোসেন, আব্দুর রহিম, শরিফুল ইসলাম খালিসদার, সৈয়দ গাউসুল হোসেন, এম আর মাহবুবুল হক, বায়তুল্লাহ শাহীন, আমির হোসেন, শাহীন চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন লেবু, যুগ্ম সদস্য সচিব কামরুল হাসান, সদস্য ড. নূরুল আমিন পলাশ, জাফর তালুকদার, মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান, মোহাম্মদ আলী রেজা, শাহ কামাল উদ্দিন, লিয়াকত আলী, ইনতিয়াজ আহমেদ বেলাল, কাওসার আক্তার ভূইয়া, জিয়াউল আহমেদ জামিল, ফাহিম শাকিল অপু, আমিনুল ইসলাম, বাচ্চু মিয়া, মোহাম্মদ আলী। বিএনপি নেতা মোশাররফ হোসেন সবুজ, পারভেজ সাজ্জাদ, নূরুল আলম, সৈয়দা মহমুদা শিরিন প্রমুখ। 

 

মানবকণ্ঠ/পিবি


poisha bazar