ভিসার মেয়াদ নিয়ে উদ্বিগ্ন সৌদি প্রবাসীরা


poisha bazar

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৩

সৌদি ইকামা-ভিসা নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছেই না। চাকরি বাঁচাতে মরিয়া প্রবাসীরা মঙ্গলবার মন্ত্রণালয় ও কারওয়ান বাজারে বিক্ষোভ করেছেন।

এদিকে প্রবাসীদের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট দফতরের মহাপরিচালক জানান, ভিসার মেয়াদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাড়বে না। ঘোষণার দিয়েও সৌদি আরব কেন ইকামার মেয়াদ বাড়ায়নি তা জানতে চাওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণার পরও বাড়েনি ইকামা বা ভিসার মেয়াদ। তাই ফের এ দফতরের সামনে বিক্ষোভে প্রবাসীরা। স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইকামা-ভিসার নবায়ন চান তারা। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী ৬ জনকে দফতরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনার জন্য ভেতরে ঢোকান। আধ ঘণ্টার বৈঠকে ইকামা-ভিসার মেয়াদ বাড়ানো আর টিকিটের সহজপ্রাপ্তির দাবি জানান তারা।

পরে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, ভিসার মেয়াদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাড়বে না। কারওয়ানবাজারে টোকেন ও টিকিটের দাবিতে বিক্ষোভ করেন সৌদি প্রবাসীরা। দফায় দফায় সড়ক অবরোধে সৃষ্টি হয় যানজটের। কাজে ফিরতে যেতে চাওয়া প্রবাসীরা ভিড় করেন মতিঝিলের বিমান কার্যালয়েও।

পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, ইকামার মেয়াদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে ২৪ দিন বাড়লেও ভিসার মেয়াদ বাড়বে না। সৌদি আরবের যেসব মালিকরা কর্মীদের ফেরত নিতে চাইছেন না তাদের সাথে আলোচনার সুযোগ রয়েছে বলে জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে এটি জটিল প্রক্রিয়া বলেও জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

ভিসা ও ইকামার মেয়াদ আরো বাড়ানো এবং টিকিটের জন্য দ্রুত টোকেন দেয়ার দাবিতে ৯ম দিনের মত গতকাল সকালে বিক্ষোভ করে প্রবাসীরা। সকালে কারওয়ানবাজারের সৌদি এয়ারলাইন্সের বুথের সামনে জড়ো হয়ে কয়েক দফা বিক্ষোভ ও ছোট ছোট মিছিলও করেন তারা। সার্ক ফোয়ারার মোড় অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। পরে সেখান থেকে মিছিল নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দাবি তুলে ধরেন তারা।

প্রবাসীদের অভিযোগ, ভিসা ও ইকামার মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি কেবল সরকারি ঘোষণাতেই সীমাবদ্ধ। বাস্তব চিত্র ভিন্ন হওয়ায় অনিশ্চিত তাদের সৌদি যাত্রা ও কাজে যোগদান।

প্রবাসীরা জানান, কারওয়ানবাজারে সৌদি এয়ারলাইন্সে গতকাল ২ হাজার ৩০০ থেকে ২ হাজার ৭০০ পর্যন্ত টোকেন প্রাপ্তদের টিকিট দেয়ার কথা। তবে যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে তাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ এজেন্সির মাধ্যমে ভিসার মেয়াদ বাড়িয়ে আনার পরামর্শ দিয়েছে। তবে কারো ভিসার মেয়াদ অটোরিনিউ হলেও অনেকের ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি নিয়ে সৌদি আরবে মালিকপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে পারছে না বলে জানিয়েছেন তারা।

প্রবাসীদের বিক্ষোভ অব্যাহত : মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে সৌদি প্রবাসীরা কাওরানবাজারে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। ফ্লাইটের টিকিট, স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিসা ও ইকামার মেয়াদ বৃদ্ধির দাবিতে এই বিক্ষোভ করেন তারা। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে পুলিশ তাদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়। এরপর বিক্ষোভকারী প্রবাসীদের একাংশ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়, আরেকাংশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দিকে চলে যান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সামনে তারা অবস্থান নেন।

সেপ্টেম্বর মাসের শুরুর দিকে ভিসার মেয়াদ শেষ হয় মোহাম্মদ লিটনের। তিনি শনিবার ঢাকায় আসেন কুমিল্লা থেকে। লিটন বলেন, ‘রবিবার দূতাবাসে গিয়েছিলাম। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। তারা ৩১টি ভিসা এজেন্সিতে যেতে বলেছে। সেখানেও গেলাম, কোনো কাজ হয়নি। অহেতুক ঢাকায় আসলাম কষ্ট করে। আজ (মঙ্গলবার) বাড়িতে চলে যাচ্ছি। যাওয়া আসায় টাকা তো নষ্ট হয়েছেই, কষ্টও হয়েছে অনেক।’

জানা গেছে, ছুটিতে এসে আটকে পড়া সৌদি আরব প্রবাসীদের ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি নিয়ে এখনো কোনো অনানুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়নি। যদিও সৌদি আরব ইকামার মেয়াদ ২৪ দিন বাড়িয়েছে, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর রবিবার প্রবাসীরা সৌদি দূতাবাসে গিয়ে হাজির হন।

দূতাবাস থেকে প্রবাসীদের জানানো হয়, আবেদন করতে হবে নির্ধারিত ৩১ ভিসা এজেন্সির মাধ্যমে। অন্যদিকে ভিসা সেন্টারগুলো বলছে, তাদের কাছে দূতাবাসের কোনো নির্দেশনা এখনও আসেনি।

সৌদি দূতাবাস অনুমোদিত তানজুম কনসালটেন্সি সার্ভিসের ভিসা কনসালটেন্ট হাবিব উল্লাহ বলেন, ‘আজও (মঙ্গলবার) আমাদের কাছে দূতাবাস থেকে কোনো নির্দেশনা আসেনি। যার কারণে আমরা এখনো কোনো কার্যক্রম শুরু করিনি।’

মিডল ইস্ট কনসালটেন্সি’র ভিসা কনসালটেন্ট মোহাম্মদ শামীম বলেন, ‘সৌদির এখনো কোনো নির্দেশনা নেই ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি নিয়ে। আমরা কোনো প্রবাসীর আবেদন গ্রহণ করছি না। দূতাবাসের নির্দেশনা ছাড়া তো কোনো কাজ করা সম্ভব হবে না।’

 






ads