২৪ ঘণ্টার মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে গেল ব্রাজিল

- ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৭ জুন ২০২০, ১২:২১,  আপডেট: ০৭ জুন ২০২০, ১২:২৯

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে একদিনে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে ব্রাজিলে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯১০ জন মারা গেছেন। মৃত্যুর এই রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রকেও ছাড়িয়ে গেছে। টানা দুই মাস ধরে প্রতিদিনের মৃতের সংখ্যায় এগিয়ে ছিল বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ যুক্তরাষ্ট্র।

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে গত মে মাসজুড়ে প্রতিদিন গড়ে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে নিউইয়র্কে। অন্যদিকে করোনায় বিপর্যস্ত ইউরোপের দেশ স্পেনে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে মাত্র একজন। তবে ভারতে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে সাড়ে ১০ হাজার মানুষ। একদিনেই মারা গেছে ২৯৬ জন। হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। মাত্র ১০ দিনে দেড় লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে দেশটিতে। বর্তমানে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬২২ জন। আক্রান্তের সংখ্যায় ভারতের অবস্থান এখন ষষ্ঠ স্থানে।

আক্রান্তের সংখ্যায় এখন শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র, দেশটি এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১৯ লাখ ৪৪ হাজার ৫৮৮ জন। মারা গেছে এক লাখ ১২ হাজার ৯৬ জন। এর পরই আছে ব্রাজিল। দেশটিতে আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৬ লাখ ৭৩ হাজার ৫৮৭ জন। মারা গেছে ৩৫ হাজার ৯৫৭ জন। তৃতীয় অবস্থানে আছে রাশিয়া। এখানে আক্রান্ত ৪ লাখ ৫৪ হাজার ৬৮৯ এবং মৃতের সংখ্যা ৮ হাজার ৮৫৫ জন। স্পেনে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৮৮ হাজার ৩৯০ জন এবং মারা গেছে ২৭ হাজার ১৩৫ জন। তবে দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় মাত্র একজন মারা গেছে।

এছাড়া যুক্তরাজ্যে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৮৪ হাজার ৮৬৮ জন। মারা গেছে ২৭ হাজার ১৩৫ জন। বাংলাদেশেও লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা।

এছাড়া বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৮৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৬৩ হাজার ২৬ জন।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সারা বিশ্বে এরইমধ্যে করোনাভাইরাসে মৃত্যু চার লাখ ছাড়িয়েছে। এছাড়া ৭০ লাখেরও বেশি মানুষ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন।

চীনের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসটিতে আক্রান্তদের মধ্যে ৫৩ হাজার ৬০০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আর চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৩ লাখ ৮০ হাজার ৮০২ জন।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads






Loading...