হোয়াইট হাউসের শীর্ষ কর্মকর্তা ড. ফাউসি কোয়ারেন্টিনে

ড.অ্যান্তনি ফাউসি
ড.অ্যান্তনি ফাউসি - ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১০ মে ২০২০, ১৩:২৮,  আপডেট: ১০ মে ২০২০, ১৩:৩৫

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে হোয়াইট হাউসের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা ও যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম জীবাণুরোগ বিশেষজ্ঞ ড.অ্যান্তনি ফাউসি স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টাইন শুরু করেছেন। ফাউসি হোয়াইট হাউসের করোনা পজেটিভ ব্যক্তিদের সংস্পর্শে এসেছিলেন।

দেশটিতে করোনাযুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সরব ছিলেন ড. ফাউসি। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসের (এনআইএআইডি) পরিচালক এবং একইসঙ্গে করোনাভাইরাস বিষয়ক ট্রাস্কফোর্সের অন্যতম সদস্য।

হোয়াইট হাউসের একজন কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর ড. ফাউসিও করোনায় আক্রান্ত হওযার ‘সামান্য ঝুঁকিতে’ রয়েছেন এই বিবেচনায় তিনি কোয়ান্টিনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

ড. ফাউসি জানান, তার করোনা টেস্টের ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। তবে তিনি ১৪দিন বাড়িতে থেকে কাজ করাসহ অন্যান্য সচেতনমূলক নির্দেশনা মেনে চলবেন।

সিএনএনসহ যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম ফাউসির কোয়ারেন্টিনকে ‘মোডিফায়েড হোম কোয়ারেন্টিন’ বলে উল্লেখ করেছে।এনবিসির প্রতিবেদনে মোডিফায়েড হোম কোয়ারেন্টিনের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, ফাউসি দুই সপ্তাহ বাসায় থেকে কাজ করবেন। আর অতি প্রয়োজনে অফিসে গেলেও মাস্ক পড়ে অন্যদের কাছ থেকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখবেন।

আর সীমিত ঝুঁকির ব্যাখ্যায় সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যে ব্যাক্তি করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন তার সরাসরি কাছাকাছি কিংবা সংস্পর্শে তিনি ছিলেন না।তারপরও সম্প্রতি হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তা করোনা পজিটিভ শনাক্ত হওয়ায় সতর্কতাস্বরূপ হোম-কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন তিনি। বাসায় থেকেই অনলাইনে নিজের কাজকর্ম সারবেন এনআইএআইডি পরিচালক।

পলিটিকো জানিয়েছে, ড. ফাউসি সম্প্রতি যে করোনা পজিটিভ ব্যক্তির সংস্পর্শে গিয়েছিলেন তিনি হচ্ছেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের প্রেস সেক্রেটারি কেটি মিলার। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অন্যতম জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা ও ভাষণ লেখক (স্পিচ রাইটার) স্টিফেন মিলারের স্ত্রী কেটির শরীরে গত শুক্রবার করোনাভাইরাস শনাক্ত হন। এতে হোয়াইট হাউসের মধ্যেও প্রাণঘাতী ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে প্রতিদিন মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছেই। করোনায় মৃতের সংখ্যায় সব দেশকে ছাড়িয়ে গেছে বিশ্বের সবচেয়ে পরাক্রমশালী দেশ হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্র। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় ১ হাজার ৪২২ জন মারা গেছে। আর এখন পর্যন্ত মোট ৮০ হাজার ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়া আক্রান্তের দিক থেকেও শীর্ষে অবস্থান করছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ লাখ ৪৭ হাজার ৩০৯ জন।

মানবকণ্ঠ/এসকে




Loading...
ads






Loading...