করোনায় বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার মৃত্যু

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০:৪০

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা ও রাজ্যসভার সাংসদ আহমেদ পাটিল মারা গেছেন। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭১ বছর।

বুধবার (২৫ নভেম্বর) ভোররাতে গুরুগাঁওয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

কোভিড টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরেই ওই হাসপাতালে তার চিকিত্‍‌‍সা চলছিল। চিকিত্‍‌সকরা জানান, প্রবীণ নেতা আহমেদ পাটিলের একাধিক অঙ্গ বিকল হয়ে গিয়েছিল।

এক টুইট বার্তায় বাবার আত্মার শান্তি কামনা করে ফৈজল পাটিল লেখেন, ‘অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমার বাবা আহমেদ পাটিল ২৫ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৩টায় প্রয়াত হয়েছেন। প্রায় দেড় মাস আগে কোভিড-১৯ -এ আক্রান্ত হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন অঙ্গ বিকল হওয়ায় তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল।' পাশাপাশি করোনা স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখার জন্য বাবার শেষকৃত্যে জমায়েত না-করার অনুরোধ করেন।

গত ১ অক্টোবর কোভিড ধরা পড়েছিল সোনিয়া গান্ধীর অন্যতম রাজনৈতিক পরামর্শদাতার। করোনার টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ জানার পর বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা টুইট করে সে খবর দিয়েছিলেন। সেসময় তাঁর সান্নিধ্যে আসা সকলকে সেলফ-আইসোলেশনে থেকে কোভিড টেস্ট করিয়ে নিতে বলেছিলেন আহমেদ পাটিল।

পরিবার সূত্রে খবর, করোনার থাবায় প্রবীণ কংগ্রেস নেতার শারীরিক অবস্থার ক্রম অবনতি হতে থাকে। ১৫ নভেম্বর তাঁকে গুরুগ্রাম মেদান্ত হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করতে হয়। দেড় মাসেরও বেশি সময় ধরে ওই হাসপাতালেই তাঁর চিকিত্‍‌সা চলছিল।

আহমেদ পাটিলের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই ভারতের রাজনৈতিক মহলে শোকের ছায়া নেমে আসে। তাঁর মৃত্যু সংবাদে স্বভাবতই ভেঙে পড়েন সোনিয়া গান্ধী।

শোকপ্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘বিশ্বস্ত সহকর্মী এবং বন্ধুকে হারালাম। এই ক্ষতি অপূরণীয়।’ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-সহ একাধিক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বও শোকপ্রকাশ করেছেন। প্রয়াত কংগ্রেস নেতার ছেলের সঙ্গে টেলিফোনে কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

৭১ বছর বয়সি আহমেদ পাটিল ছিলেন তিন বারের লোকসভার সাংসদ। রাজ্যসভায় পঞ্চম বারের মেয়াদে ছিলেন। কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর ঘনিষ্ঠ এই নেতা তাঁর রাজনৈতিক পরামর্শদাতাও ছিলেন। ছিলেন কংগ্রেসের কোষাধ্যক্ষও।

মানবকণ্ঠ/এসকে






ads