বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলার সব আসামি খালাস

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩:২১,  আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩:৪৬

ধ্বংসের প্রায় ২৮ বছর পর ভারতের অযোধ্যার ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ মামলার রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। অভিযুক্ত আসামিদের সবাইকে খালাস দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) এ রায় ঘোষণা করেন উত্তরপ্রদেশের লখনৌউয়ের বিশেষ আদালত।

আদালতের বিচারক এদিন বলেন, মসজিদ ভেঙে ফেলার এই ঘটনা "পূর্ব পরিকল্পিত ছিল না।" ১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলার দিন বিজেপি নেতারা উন্মত্ত জনতাকে ঠেকানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু করসেবকদের ভিড় তাদের নিষেধ শুনতে রাজি হয়নি।

আলোচিত এই মামলায় মোট ৪৯ জনকে অভিযুক্ত করে এফআইআর দায়ের করা হয়েছিলো। বিজেপির অনেক সিনিয়র নেতা মামলায় অভিযুক্ত। অভিযুক্তদের মধ্যে ১৭ জন এরই মধ্যে মারা গেছেন। বেঁচে আছে ৩২ জন। ওই মামলায় উল্লেখযোগ্য অভিযুক্তদের মধ্যে আছেন বিজেপির সিনিয়র নেতা এলকে আদভানি, মুরালি মনোহর যোশী, উত্তরপ্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং, বিজেপির ফায়ার ব্র্যান্ড নেত্রী উমা ভারতী, বিনয় কাটিয়ারের মতো নেতাও।

ভারতের প্রধান রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) তৎকালীন নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানীর নেতৃত্বে ১৯৯২ সালে দফায় দফায় রথযাত্রা হয়। এই রথযাত্রা থেকে ষোড়শ শতাব্দীর অন্যতম এই মুসলিম স্থাপনায় হামলা চালানো হয়। কট্টরপন্থী করসেবকরা মসজিড় গুঁড়িয়ে দেয়। এ ঘটনার পরপর দেশটিতে হিন্দু-মুসলিম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়। এতে প্রাণ যায় প্রায় ৩ হাজার মানুষের। প্রায় আড়াই যুগ পর বুধবার এই মামলার রায় ঘোষণা করেন আদালত। কিন্তু আদালতে উপস্থিত ছিলেন না বিজেপির অভিযুক্ত শীর্ষ এই নেতারা।

গত নভেম্বরে বিতর্কিত ধর্মীয় স্থানটিতে একটি হিন্দু মন্দির বানানোর পক্ষে রায় দেয় ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। হিন্দুদের মতে, মসজিদের ওই জায়গাটি ছিল হিন্দুধর্মের অন্যতম আরাধ্য দেবতা রামের জন্মস্থান এবং সেখানে মসজিদ হওয়ার আগে একটি মন্দির ছিল।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads







Loading...