ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের মিলন মেলা


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২১ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:৫৫,  আপডেট: ২২ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:২৩

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের মিলন মেলা ও বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) সকাল থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জের সুর্বণগ্রাম রিসোর্টে এই মিলন মেলা ও বনভোজন অংশ নেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা।

দীর্ঘদিন পর রাজপথের সতীর্থদের দেখা পেয়ে আবেগে উৎফুল্ল হয়ে পড়েন সাবেক এই নেতারা। বুকে জড়িয়ে স্মৃতিচারণ করেন সোনালী দিনগুলোর নানান স্মৃতি।

মুক্ত আলোচনায় অনুভূতি প্রকাশ করে ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা বলেন, ‘স্বাধীনতা যুদ্ধসহ দেশের সব আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্রলীগের অনন্য অবদান রয়েছে। ছাত্রলীগের বহু নেতা প্রাণ দিয়েছেন, রক্ত দিয়েছেন দেশ গঠনের সব আন্দোলনে। তাই এসব অবদান ইতিহাসে লেখা রয়েছে। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের অবদান অবিস্মরণীয়। কিন্তু সাবেক হয়ে গেলে অনেক নেতা নানাভাবে অবহেলিত হন। সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের মূল্যায়ন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ রয়েছে। এক্ষেত্রে সবার ঐক্যবদ্ধ থাকা দরকার।’

‘আওয়ামী লীগ ও বর্তমান সরকারের সকল উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড প্রচার এবং সকল ষড়যন্ত্র রুখতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেছেন সাবেক ছাত্রনেতারা।’

সাবেক নেতাদের এ মিলন মেলা ও বনভোজনে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মোল্লা মো. আবু কাওসার, আব্দুস সালাম, মহিউদ্দিন হেলাল, লিয়াকত সিকদার, কাজী তারিক কায়কোবাদ, সাইফুল্লাহ সাইফুল, শাহজাদা মহিউদ্দিন, এনামুল হক আবির, অহিদুর রহমান টিপু, মিরাজ হোসেন, মিজানুর রহমান আরজু, হেমায়েত উদ্দিন, জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন, গোলাম সরওয়ার কবীর, আবুল ফজল রাজু, রাশেদুল বাসার ডলার, আনজাম মাসুদ, সাজ্জাদ হোসেন, আরিফুল ইসলাম বাপ্পি, মো. তৌফিদুল ইসলাম বুলবুল, মো. আলমগীর হোসেন ও রাজীব হোসেনসহ প্রায় সাড়ে চারশত নেতা ও নেত্রী।

এর আগে সকালে আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমণ্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে থেকে কয়েকটি বাস যোগে মিলনমেলা ও বনভোজনস্থলে উপস্থিত হন সাবেক নেতারা। দিনব্যাপী এই মিলনমেলার বিশেষ আর্কষণ ছিলো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও র‌্যাফেল ড্র।


poisha bazar


ads