গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পদে পদে বাঁধা দিচ্ছে বিএনপি: কাদের


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২২ জুলাই ২০২১, ১৭:২৬

গণতন্ত্র একটি বিবর্তনমূলক প্রক্রিয়া, এটি রাতারাতি প্রতিষ্ঠা হয় না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, বরং বিএনপিই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পদে পদে বাধা দিচ্ছে। তারপরও চড়াই উতরাই অতিক্রম করে গণতন্ত্র এগিয়ে যাচ্ছে।

দেশে গণতন্ত্র নেই—মির্জা ফখরুলের এমন অভিযোগের জবাবে বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) সকালে নিজ বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।

রাজনৈতিক শিষ্টাচার ও সৌজন্যতা নাই বলেই বিএনপি ঈদের দিনেও সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সরকারের উদাসীনতা ও অযোগ্যতায় দেশের মানুষ কষ্টে আছে—মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আসলে দেশের জনগণ নয়, বিএনপিই তাদের ব্যর্থ রাজনীতি ঢাকতে জনগণের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। দেশের মানুষ ভালো আছে বলে বিএনপির গায়ে জ্বালা বাড়ায়। সময়ের পরীক্ষিত নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসীম সাহসী নেতৃত্বে দেশের জনগণ ভালো আছে।

নির্বাচন ও আন্দোলনে বারবার পরাজিত বিএনপির নেতারা এখন মিডিয়ায় বক্তব্য বিবৃতিতে সীমাবদ্ধ উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির প্রতি জনগণের আস্থা নেই বলেই এখন তারা এটা সেটা বলে মাঠ গরম করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছে কর্মীদের চাঙা রাখার জন্য।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই এদেশ মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী হয়, দেশ স্বাধীন হয় জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ দেশের সকল অর্জন এবং মানুষের সুখ- দুঃখের সাথে রয়েছে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় বিশ্বাসী নয় বরং বিএনপিই এদেশে প্রতিহিংসার রাজনীতির পথপ্রদর্শক।

খালেদা জিয়ার মামলা ও চিকিৎসা নিয়ে বিএনপির নেতারা এক ধরনের রহস্যময় আচরণ করছেন, তার মুক্তি ও চিকিৎসার চেয়ে রাজনীতি করতেই তারা বেশি আগ্রহী উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াকে আপনারা নিজ নিজ পদরক্ষার জন্য দাবার গুঁটি বানাবেন আর দায় চাপাবেন সরকারের ওপর, তা হতে পারে না। খালেদা জিয়ার প্রতি অধিকতর মানবিক আচরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার চিকিৎসা ও বয়সের কথা বিবেচনায় তাকে ঘরে চিকিৎসার সুযোগ করে দিয়েছেন। বিএনপি নেতাদের শেখ হাসিনার মহানুভবতার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। পবিত্র ঈদের দিনেও বিএনপি নেতারা জিয়াউর রহমানের সমাধিস্থলে গিয়ে মিথ্যাচার করছেন, তাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নাকি নির্বাসনে!

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতাদের প্রশ্ন রেখে বলেন, তারেক রহমান একজন দণ্ডিত আসামি, যদি নির্বাসনে মনে করেন তাহলে তিনি দেশে কেন ফিরে আসছেন না? আসলে তারেক রহমান নির্বাসনে নাকি মুচলেকা দিয়ে দেশত্যাগ করেছেন, তা কি বিএনপির নেতারা ভুলে গেছেন?

দেশে জেল-জুলুমের ভয় করলে রাজনীতি করছেন কেন? কেন তারেক রহমান নির্বাসনে গেলেন মুচলেকা দিয়ে এসব প্রশ্ন রেখে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে বলেন, জনগণকে বোকা বানানোর দিন এখন আর নেই।

মানবকণ্ঠ/এনএস


poisha bazar

ads
ads