জানুয়ারি থেকে থাকবে না গ্যাস সংকট: বাণিজ্যমন্ত্রী


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৪ নভেম্বর ২০২২, ২২:০৮

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, সিরামিক বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় শিল্পের একটি। বাংলাদেশের সিরাসিক পণ্যের মান বেশ ভালো। তবে দেশে গ্যাস সংকটের কারণে সিরামিক শিল্পে কিছু সমস্যা হচ্ছে, ধীরে ধীরে পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। আশা করা যায়, জানুয়ারি মাস থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।

বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) ঢাকায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় সিরামিক এক্সপো-২০২২ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

তিন দিনব্যাপাী এ মেলার আয়োজন করে বাংলাদেশ সিরামিক ম্যান্যুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিসিএমইএ)।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সিরামিক শিল্প খুব কম সময়েই বাংলাদেশে প্রসার লাভ করেছে। এক সময় সিরামিক বিদেশ থেকে আমদানি করে দেশের মানুষ কাজ করতো। এখন দেশের চাহিদার প্রায় ৮৫ ভাগ পূরণ করেছে দেশে উৎপাদিত সিরামিক। বাংলাদেশে তৈরি সিরামিকের প্রচুর চাহিদা রয়েছে বিদেশে। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৫০টি দেশে সিরামিক পণ্য রপ্তানি হচ্ছে।

এখাতের বর্তমান রপ্তানি আয় বছরে প্রায় পাঁচ শতকোটি টাকা। সরকার বিভিন্ন ভাবে সিরামিক পণ্য রপ্তানিতে উৎসাহ দিচ্ছে। খুব অল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের সিরামিক পণ্যের রপ্তানি এক বিলিয়ন ছাড়িয়ে যাবে। দেশে বর্তমানে ৭০টির বেশি সিরামিক শিল্প রয়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, দেশে গ্যাস সংকটের কারণে সিরামিক শিল্পে কিছু সমস্যা হচ্ছে। আগামী জানুয়ারি মাস থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে। বর্তমানে প্রায় ৫ লাখ মানুষ সিরামিক শিল্পের সাথে জড়িত। আসতে আসতে এ শিল্পের ব্যাপক প্রসার ঘটছে, এ খাতের উৎপাদন বৃদ্ধি প্রায় ২০০ শতাংশ। দেশে-বিদেশে সিরামিক পণ্যের চাহিদাও বাড়ছে। দেশে বর্তমানে প্রায় ৭০ টি শিল্প কারখানা রয়েছে।

বাংলাদেশ সিরামিক ম্যান্যুফেকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিসিএমইএ) এর প্রেসিডেন্ট মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এফবিসিসিআই এর ভাইস প্রেসিডেন্ট মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সেক্রেটারি জেনারেল এরফান উদ্দিন।

উল্লেখ্য, এবারের মেলায় বিশ্বের প্রায় ২০ দেশের ১২০ প্রতিষ্ঠানের ১৫টি ব্র্যান্ড অংশগ্রহণ করছে। ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধা ৭ টা পর্যন্ত মেলা দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে। মেলায় প্রবেশে কোনো ফি লাগবে না।

মানবকণ্ঠ/এসআরএস


poisha bazar