প্রস্তুত যশোরের শামসুল হুদা স্টেডিয়াম

আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় কাল নামছেন শেখ হাসিনা

 ১০ লক্ষাধিক নেতাকর্মী জমায়েত করার টার্গেট


  • রফিকুল ইসলাম
  • ২৩ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৫৩

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের জনসভা কাল। জেলার শামসুল হুদা স্টেডিয়ামে এ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলীয়প্রধানের উপস্থিতিতে জনসমুদ্রে পরিণত হবে জনসভাস্থল। একত্রে জমায়েত হবে দলটির প্রায় ১০ লক্ষাধিক নেতাকর্মী। যশোরের এ জনসভার মধ্য দিয়ে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শুরু করবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। দেশের উন্নয়নের স্বার্থে সমর্থন চাইবেন নৌকায়।

সূত্রে জানা যায়, আগামীকাল বৃহস্পতিবার যশোরে আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জেলার শামসুল হুদা স্টেডিয়ামে ভাষণ দেবেন তিনি। দলীয়প্রধানের আগমন কেন্দ্র করে দলের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। নৌকার আদলে তৈরি করা হয়েছে জনসভার মঞ্চ। বড় বড় বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে পুরো যশোর। শেষ করা হয়েছে সব ধরনের সাজসজ্জা। তৈরি করা হয়েছে তোরণ ও অভ্যর্থনা গেট। সমাবেশকে কেন্দ্র করে যেন কোনো ধরনের বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি না হয়, সেজন্য সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। বিশাল এই গণজমায়েতের জন্য বাস, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস মিলিয়ে ৫ হাজার যানবাহন আসা ও পার্কিংয়ের জন্য স্থান নির্ধারণ করেছে ট্রাফিক বিভাগ। জনসভার দিন শহরে কোনো যানবাহন প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। সমাবেশকে সফল করতে ইতোমধ্যে যশোরে অবস্থান করছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতারা।

আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সর্বশেষ ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর যশোর ঈদগাহ মাঠে নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দীর্ঘদিন পর দলীয়প্রধানের আগমন ঘিরে উজ্জীবিত যশোর জেলা আওয়ামী লীগ। জনসভায় দলীয় নেতাকর্মীদের উপস্থিতির মধ্য দিয়ে সাংগঠনিক শক্তির প্রদর্শন দেখাতে চান দলটির স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এ লক্ষ্যে সমাবেশে প্রায় ১০ লাখ মানুষের উপস্থিতি ঘটানোর টার্গেট হাতে নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে দলের পক্ষ থেকে প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, থানা ও উপজলাসহ সর্বস্তরের কর্মী-সমর্থকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নানা ধরনের পোশাক ও ক্যাপ পরিধান, ঢোল-তবলা এবং বাদ্যযন্ত্র নিয়ে জনসভায় অংশগ্রহণ করবেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই বিভাগীয় গণসমাবেশে ব্যস্ত বিএনপি। ইতোমধ্যে দলের সাংগঠনিক ৭টি বিভাগের গণসমাবেশ শেষ করেছে দলটি। এ সমাবেশের মধ্য দিয়ে উজ্জীবিত বিএনপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। বিভাগীয় গণসমাবেশের পর ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশের মধ্য দিয়ে সরকারবিরোধী বড় আন্দালনে যাওয়ার টার্গেট বিএনপির। দলটির এসব কার্যক্রমের জবাব জনসভার মধ্য দিয়ে দিতে চান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এজন্য ধারাবাহিকভাবে সারাদেশে জনসভা করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে লক্ষাধিক নেতাকর্মীর উপস্থিতি ঘটানো হবে। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার যশোর জেলার শামসুল হুদা স্টেডিয়ামে জনসভায় অংশ নিবেন তিনি। আ.লীগ সূত্রে জানা যায়, আগামী বছরের ডিসেম্বর অথবা ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনের অংশ হিসেবে এখন থেকেই সারাদেশে জনসভা করবে আওয়ামী লীগ। সবগুলো জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ডে এবং ৭ ডিসেম্বর কক্সবাজারের শেখ কামাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দলীয় জনসভায় ভাষণ দেবেন তিনি। জনসভায় অংশ নিয়ে জাতীয় নির্বাচনের আগে তৃণমূল পর্যায়ে দলীয় নেতাকর্মীদের করণীয় কি? সে সকল বিষয়ে বিশেষ বার্তা দেবেন আওয়ামী লীগ প্রধান।

মানবকণ্ঠ/এআই


poisha bazar