হেফাজতের পক্ষ নিলেন নূর


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৪:২৮,  আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৩২

হঠাৎ করেই ইসলামি মৌলবাদীদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে বক্তব্য প্রদান করলেন নূরুল হক নূরু। আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও সমর্থকরা 'প্রকৃত মুসলমান নয়' বলে মন্তব্য করেন সাবেক এই ডাকসুর ভিপি। এ সময় তিনি আরো বলেন, 'প্রকৃত কোন মুসলাম আওয়ামী লীগ করতে পারে না।'

মুসলিমদের ইবাদতের মাস রমজানের প্রথম দিন গত ১৪ এপ্রিল ফেসবুক লাইভে এসে নূর এ সকল মন্তব্য করে। নিজে ব্যক্তিগত জীবনে কিভাবে ইসলাম চর্চা করে সে সম্পর্ক কোন বর্ণনা না দিয়ে নূরু বলেন, 'তারা (আওয়ামী লীগ) মুসলমান না। তাদের কোন বিশ্বাস নেই। একটু খোঁজ নিয়ে দেখেন তাদের কেউ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে কিনা।'

নিজেকে শরিয়াহ আইনের ধারক মনে করা নূরু বলেন, 'তারা (আওয়ামী লীগ) শরিয়াহ এবং সুন্নাহ অনুসারে নিজেদের জীবনযাপন করছে না।' তার এই ভাষার সঙ্গে হেফাজতের বক্তব্যের মিল রয়েছে যারা শরিয়াহ আইন অনুসারে দেশ পরিচালনার জন্য আন্দোলন করে যাচ্ছে।

ব্যক্তিগত ধারণা প্রসূত ও বিদ্বেষে ভরা বক্তব্যে নূরু আরো বলেন, 'তারা (আওয়ামী লীগ) সপ্তাহে একদিন নামাজ পড়ে, কিন্তু কখনো পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে না। তারা ঘুষ নেয়, চাঁদাবাজি করে, মাদক চোরাচালান করে এবং টেন্ডার ব্যবসা করে।'

এ সময় তার বিদ্বেষমূলক বক্তব্যে নূরু আরো বলেন, 'কোন মুসলমান আওয়ামী লীগের সমর্থন করতে পারে না। যারা আওয়ামী লীগ সমর্থন করে তারা প্রকৃত মুসলমান নয়।' মজাদার বিষয় হলো ১৯৭১ সালের আগে মুসলিম লীগ এবং তার পরবর্তী সময়ে জামায়াত ইসলাম এই ভাষায় কথা বলেছে বাংলাদেশে।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'তারা ঘুষ নেয়, চাঁদাবাজি করে, টেন্ডার ব্যবসা করে। আবার নিজেদের মুসলমান দাবি করে।' কিন্তু এ সময় হেফাজতের বিভিন্ন নেতাদের অর্থ কেলেঙ্কারির বিষয়গুলো নিয়ে কোন আলোচনা করেননি নূরু।

এ সময় আওয়ামী লীগ সমর্থকদের তিনি 'চাঁদাবাজ', 'মাদক চোরাকারবারি', 'ধোঁকাবাজ', 'বাটপার' এমন অনেক কিছু হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেন। কিন্তু মাদ্রাসায় শিশুদের ওপর চলা নির্যাতন বিষয়ে কোন কথা তিনি বলেননি। বরং ধর্মীয় ঘৃণা ছড়িয়ে দেয়ার রাজনীতির পথেই হাঁটেন তিনি।

সম্প্রতি ধর্মীও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের এবং হেফাজত নেতার ধর্ম অবমাননাকর তথ্যগুলোকে সরকারের চাল হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেন তিনি। আওয়ামী লীগ পরিকল্পিতভাবে তা করছে বলে মন্তব্য করেন সাবেক ডাকসু সহ-সভাপতি।






ads
ads