গুজবের জবাবে সত্য ও বাস্তব তথ্য পরিবেশন করুন: ছাত্রলীগ সভাপতি


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৮ এপ্রিল ২০২১, ০০:০৬

গুজব মোকাবিলার যুদ্ধে তথ্য নিয়ে নিজ নিজ এলাকায় এবং নিজ নিজ অবস্থান থেকে সংগঠনের সকলকে প্রচারের আহ্বান জানিয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়।

বুধবার রাতে নিজের ফেসবুক ওয়ালে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি এই আহ্বান জানান। পাঠকদের জন্য ছাত্রলীগ সভাপতির স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

গত কিছুদিন ধরেই অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে একটা চক্র দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। এমনকি বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতেও দেশজুড়ে নাশকতা করেছে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি। একই সঙ্গে গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করছে এই চক্র। কারণ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে যে উন্নয়ন হচ্ছে, মানুষের জীবনমান বদলে গেছে, তা সহ্য করতে পারছে না ১৯৭১-এর পরাজিত অপশক্তি ও তাদের সন্তানেরা।

তাই বাংলাদেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে একের পর এক ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে ধর্মান্ধ ও উগ্রবাদী গোষ্ঠী। তারা প্রকাশ্যে সরকারি অফিস, হাসপাতাল, যানবাহন ও সাধারণ মানুষের ঘরবাড়িতে ভাঙচুর করছে ও আগুন দিচ্ছে। স্থানীয় অনেক আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও সেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত এই উগ্রবাদীরা।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সরকারের পক্ষ থেকে নাগরিক হিসেবে তাদের বারবার সুপথে ফেরার সুযোগ দেওয়া হয়েছে, কিন্তু তারা এটাকে দুর্বলতা ভাবছে। তারা বাস্তবজীবনে যেমন বেপরোয়া ভাবে হামলা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে এবং অনলাইনেও তেমনি সংঘবদ্ধ হয়ে গুজব ছড়াচ্ছে।

এই উগ্রবাদীদের সন্ত্রাস মোকাবিলা করে, সমাজে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে, এখন সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তাই দেশের প্রতিটি এলাকায়,বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সক্রিয় হয়ে সন্ত্রাস প্রতিরোধের আহ্বান জানাচ্ছি। আপনারা নিজ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলুন, উগ্রবাদীদের মিথ্যা তথ্যের বিপরীতে স্থানীয়দের কাছে সত্য তথ্য পরিবেশন করুন। একই সঙ্গে অনলাইনেও সবাই সক্রিয় হোন। ফেসবুক, ইউটিউবসহ সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উগ্রবাদী, বিএনপি-জামায়াত ও ধর্মব্যবসায়ীদের গুজবের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। তাদের গুজব চিহ্নিত করুন এবং সত্যকে প্রকাশ করুন।

এই স্বাধীনতাবিরোধী ও উন্নয়ন বিরোধী চক্রটি সন্ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে জনমনে ভীতি সঞ্চার করছে। তারা নাশকতার সময় সুকৌশলে ধর্মীয় স্লোগান ব্যবহার করছে, ধর্মীয় সংস্কৃতির পোশাক পরছে, এমনকি ফেসবুকেও তারা ধর্মীয় নাম ব্যবহার করে ফেক-আইডি খুলছে এবং সেসব ভুয়া আইডি থেকে গুজব ছড়াচ্ছে। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসল্লিদের যতভাবে হিপনোটাইজ করা যায়, সাময়িকভাবে তাদের মনে ভ্রম সৃষ্টি করা যায়, এই ধর্মব্যবসায়ীরা তাই করছে। এসবের মাধ্যমে তারা সমাজের সরলপ্রাণ মানুষের মনে বিভ্রান্ত ও ভীতি সৃষ্টি করছে।

আপনারা নিজ নিজ জায়গা থেকে, অনলাইন ও অফলাইনে, উগ্রবাদীদের মিথ্যাচার ও অপরাজনীতির বিরুদ্ধে সত্য তথ্য পরিবেশন করে গুজবকে রুখে দিন। তাহলে শিগগিরই সাধারণ মানুষের সামনে তাদের মুখোশ উন্মোচিত হবে ইনশাআল্লাহ।

আমরা শান্তিপূর্ণ সমাজ ব্যবস্থায় বিশ্বাস করি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, সেই অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে বিএনপি-জামায়াত ও উগ্রবাদীরা মরিয়া হয়ে গেছে। স্থানীয় পর্যায়ের প্রতিটি ওয়ার্ডে, পাড়ায়, মহল্লায়, গ্রামে, মফস্বলে- সব জায়গায় আপনারা পরিচিতদের সঙ্গে উগ্রবাদীদের অপচেষ্টার বিষয়ে কথা বলুন। তাদের গুজবের জবাবে সত্য ও বাস্তব তথ্য পরিবেশন করুন এবং আপনারা সবাই অনলাইনে সক্রিয় হোন। তাহলেই এই দেশবিরোধী, ভণ্ড ও দুর্বৃত্ত চক্রের সব অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যাবে।






ads
ads