কারফিউ দিয়েও লাভ হবে না

লাঠি নিয়ে না নামলে মানুষ ঘরে থাকবে না : শামীম ওসমান

মানবকণ্ঠ
শামীম ওসমান - ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১০ এপ্রিল ২০২০, ২২:০১,  আপডেট: ১০ এপ্রিল ২০২০, ২২:১৯

করোনাভাইরাসের ভায়াবহতায় পুরো নারায়ণগঞ্জ জেলাকে লকডাউন করা হলেও মানুষকে ঘরে রাখা যাচ্ছে না। এখনো মানুষ কারণে-অকারণে বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে, আড্ডা দিচ্ছে। অথচ সরকারি হিসেবে শুক্রবার নতুন করে আরো ১৬ জন আক্রান্ত হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেন, কারফিউ দিয়েও লাভ হবে না। লাঠি নিয়ে না নামলে মানুষ ঘরে থাকবে না।

আজ শুক্রবার (১০ এপ্রিল) বিকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যতকিছুই দেওয়া হোক লাভ হবে না। কারণ কারফিউ দিলে তো সেনাবাহিনীই নামবে। সেনাবাহিনী তো মাঠে আছেই, র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবিও মাঠে। তারা একদিক দিয়ে টহল দিয়ে যাচ্ছে আরেকদিক দিয়ে মানুষ বের হয়ে যাচ্ছে। তাহলে এখন কী করা?

শামীম ওসমান বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক সমাজকে অনুরোধ করে বলছি, আমি কিন্তু লোক নামিয়েছিলাম। ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জের কয়েকটা এলাকায় লাঠি নিয়ে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করেছে তারা। কিন্তু দুই একটা মিডিয়া লিখে দিলো লাঠি হাতে যুবকরা মহিলাদের বাড়ির সামনে হৈ চৈ করছে। তাহলে কী দাঁড়ালো? কাজ করতে গেলেও সমস্যা, না করলেও সমস্যা।

শামীম ওসমান আরো বলেন, এই ব্যাপারে সাংবাদিকদের অংশগ্রহণ প্রয়োজন। তাহলে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দল, পঞ্চায়েতকে নিয়ে এলাকায় এলাকায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আমরা ৫ থেকে ১০ জন স্বেচ্ছাসেবক দিয়ে টিম করে মাঠে নামাবো। কমিটিতে যারা থাকবে তাদের একটা আইডি কার্ড প্রশাসনের কাছে থাকবে। যাতে এই সুযোগে অন্য কেউ বদমাশি করতে না পারে। তাদের কাজ শুধু পাড়া মহল্লায় মানুষকে ঘর থেকে বের হতে বারন করা। এবং বের হলে যে কোন উপায়ে তাকে ঘরে ঢুকিয়ে দেওয়া। আর কমিটিগুলোতে স্ব স্ব এলাকায় সাংবাদিকরা পর্যবেক্ষক হিসেবে থাকতে পারে।

নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক সমাজের কাছে অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা সবাই মিলে একটা সিদ্ধান্ত যদি আমাকে জানান, তাহলে মানুষের মধ্যে সচেতনা বৃদ্ধি এবং তাদের ঘরে থাকতে বাধ্য করতে স্বেচ্ছাসেবী নামাবো। এছাড়া মানুষকে ঘরে রাখা কোনভাবেই সম্ভব না।

মানবকণ্ঠ/এইচকে/নাহিদ




Loading...
ads






Loading...