হামলা হয়েছে কী না জানতে চান আতিকুল

হামলা হয়েছে কী না জানতে চান আতিকুল
হামলা হয়েছে কী না জানতে চান আতিকুল - সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ১৭:৩০

বিএনপির উপর কোথাও হামলা হয়েছে কী না জানতে চান ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ একটি গণতান্ত্রিক দল, গণতন্ত্রে বিশ্বাসী দল। এই গণতান্ত্রিক চেতনা থেকে কিন্তু আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ। আমি গতকাল দেখেছি, তারা ফার্মগেট এলাকায় নির্বাচনী ক্যাম্পেইন করেছে। তারা নির্বিঘ্নে নির্বাচনী ক্যাম্পেইন চালিয়েছে। তারা বলুক কোনো একটি জায়গায় তাদের ওপর হামলা হয়েছে কি না। ফার্মগেট এলাকায় একটি জায়গাতেও তাদের ওপর হামলা হয়নি।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুর ১টায় আগারগাঁও তালতলা শতদল কমপ্লেক্স মাঠে আয়োজিত নির্বাচনী প্রচারণা অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেন তিনি।

আতিকুল বলেন, উত্তরাতে আমাদের নির্বাচনী ক্যাম্পেইনের সামনে দিয়ে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা আমার প্রতিপক্ষের নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছে। সেখানেও কিন্তু কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

তিনি বলেন, বিএনপির প্রতিদিনের কাজ একটা না একটা অভিযোগ করা, মিথ্যা কথা বলা। আমরা যেমন প্রতিদিন সকালে নাস্তা করি, ব্যায়াম করি, তেমনিভাবে বিএনপি প্রতিদিন সকালে উঠে একটি কথা বলে যে, নির্বাচনী মাঠে লেভেল প্লেয়িং হচ্ছে না। আমি আমার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মনোনীত প্রার্থীকে অনুরোধ করব, যেন এ ধরনের মিথ্যা কথা, মিথ্যা প্রচার থেকে বিরত থাকেন।

আতিকুল ইসলাম বলেন, গতকাল যখন আমি খিলগাঁও তালতলা এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণার কাজে যাই, সেখানে দেখেছি যে তারা রিকশায় ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন, প্যারোডি গান চালাচ্ছেন। আমার নির্বাচনী প্রচারণা দল থেকে সেখানে হামলা চালানো হয়নি বরং আমি হাততালি দিয়ে স্বাগত জানিয়েছি।

নির্বাচনী প্রচারণায় দেরিতে আসার ব্যাপারে ক্ষমা চেয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী বলেন, আমি ক্ষমা চাচ্ছি, আমি চোখের সমস্যায় ভুগছি, চোখের ডাক্তার দেখাতে গিয়েছিলাম। যে কারণে আজকে এই নির্বাচনী প্রচারণায় আসতে দেরি হয়েছে। বিষয়টি সবাই নিশ্চয় ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

এসময় আগারগাঁও তালতলা শতদল কমপ্লেক্স মাঠে নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন করে স্থানীয় সংসদ সদস্য সাদেক খানকে দেখা যাওয়ার কথা উল্লেখ করলে আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি এখানে উপস্থিত হবার পরে আপনারা কেউ কোনো সংসদ সদস্যকে কি এখানে দেখেছেন? আমি দেখিনি। এটা ওনার এলাকা। উনি এখানে অন্য কোনো কাজে আসতেই পারেন। উনি ওনার এলাকায় ঘুরে বেড়াতেই পারেন। সত্য কথা হলো নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় উনি থাকতে পারবেন না, এমপি-মন্ত্রীরা প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন না-এটা নির্বাচন কমিশনের বক্তব্যে জেনেছি।

তিনি বলেন, আগামী ৩০ জানুয়ারি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যদি আমিসহ আমার কাউন্সিলররা বিজয়ী হই, তাহলে আমি ও আমার কাউন্সিলরদের প্রতি বছর আয়ের হিসাব দেব। স্বচ্ছতা ও জবাবহিদিতার জন্য, দুর্নীতিমুক্ত সিটি গড়ার জন্য আমি তা নিশ্চিত করব।

মেয়রপ্রার্থী আতিকুল বলেন, আয়-ব্যয়ের হিসাবই শুধু নয়, প্রতি বছর একটি করে স্মৃতি হল মিটিং করার চেষ্টা করব, যেটা হবে জবাবদিহিতার মিটিং। নিজেদের আয়ের হিসাব দাখিলের মিটিং।

তিনি বলেন, আমরা চাই ওয়ার্ডভিত্তিক সমস্যার সমাধান করার জন্য। বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা রয়েছে। সেগুলো চিহ্নিত করে সমন্বিতভাবে কাউন্সিলর ও স্থানীয়দের সঙ্গে নিয়ে সমাধান করা হবে।

সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকায় তার কার্যক্রমের ফিরিস্তি তুলে ধরে আতিকুল বলেন, এই এলাকায় ১০ কিলোমিটার রাস্তা করেছি, যেখানে আলাদা সাইকেল লেন স্থাপন করা হয়েছে। যেখানে থাকবে গাড়ি পার্কিং, সাইকেল লেন, বাগান। এলাকার মানুষজন এই সড়কে বিনোদন পাবেন, হাঁটতে পারবেন।

‘আমাদের নির্বাচনী মেনিফেস্টোতে ছিল সড়কে সাইকেল লেন স্থাপন করার প্রতিশ্রুতি। সেটা বাস্তবায়নের প্রথম পদক্ষেপই হচ্ছে এই সাইকেল লেন। সেটা আমরা শুরু করতে পেরেছি, কাজ শুরু করে দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকার এ নির্বাচনী এলাকায় সাতটি খেলার মাঠ উন্মুক্ত করেছি, সেখানে খেলার মাঠ, পার্ক করা হবে। ছোট ছোট কিছু জায়গা আছে, যেখানে বড় ধরনের কোনো খেলার মাঠ করা যাবে না, সেখানে বাচ্চারা যাতে খেলতে পারে সেজন্য এসব ছোট ছোট খেলার মাঠকে শিশুপার্ক হিসেবে গড়ে তোলা হবে।’

‘যত বেশি খেলার মাঠ থাকবে তত বেশি আমাদের যুবকরা, তরুণরা খেলাধুলার সুযোগ পাবে, মাদক থেকে দূরে থাকবে। সবাইকে অনুরোধ করব, আসুন, মাদককে আমরা প্রতিরোধ করি, যুবসমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষা করি। কোনো কিছুই সফল হব না যদি আমরা মাদক প্রতিরোধ করতে না পারি। আমাদেরকে মাদকের বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করতে হবে’-যোগ করেন আতিকুল ইসলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত ২৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মো. ফোরকান হোসেন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী হামিদা আক্তার মিতা।

এ নির্বাচনী প্রচারণা অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করছেন ২৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বেলায়েত হোসেন খান।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads






Loading...