ত্যাগীদের মূল্যায়নে আ'লীগ ইতিবাচক মনোভাব রাখে: আব্দুর রহমান

ত্যাগীদের মূল্যায়নে আ'লীগ ইতিবাচক মনোভাব রাখে: আব্দুর রহমান
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান - ফাইল ফটো

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯:২২

আওয়ামী লীগের আগামী সম্মেলনে ত্যাগীদের মূল্যায়নই সর্বাধিক গুরুত্ব পাবে বলে জানিয়েছেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, ত্যাগীদের মূল্যায়নে আ'লীগ ইতিবাচক মনোভাব রাখে। এবারো তার ব্যত্যয় হবে না। রোববার মানবকণ্ঠের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, শুদ্ধি অভিযানের পরে দলের তৃণমূল থেকে শুরু করে জেলা উপজেলা মহানগর পর্যায়ে ক্লিন ইমেজ ও দীর্ঘদিন ধরে দলে আছেন এমন নেতৃবৃন্দের হাতেই দলের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আব্দুর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন দল ক্ষমতায় থাকার কারণে অনেকেই দলের ছায়া ব্যবহার করার চেষ্টা করেছে। তবে তাদেরকে সরিয়ে দিতে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নিজে কাজ করেছেন। সারাদেশে শুদ্ধি অভিযান চালিয়ে নতুন নেতৃত্বের হাতে দলকে তুলে দিয়েছেন। যার ইতিবাচক ফল এরইমধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা মহানগরের দুই অংশের কমিটি, কুমিল্লা উত্তরের সভাপতি, সিলেট মহানগর, রাজশাহী মহানগর, চট্টগ্রাম উপনির্বাচনের মনোনয়ন তার জ্বলন্ত উদাহরণ। জয়নাল হাজারীকে উপদেষ্টা করা আরো বড় প্রমাণ। প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে সারাদেশের ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতাদের দিয়েছেন দু হাত ভরে।

দল ও সরকারকে আলাদা করার প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, একই ব্যক্তি দল ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকলে অনেক সময় মনোযোগ দিতে সমস্যা হয়। বিষয়টি দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার বলেছেন। ফলে তিনিই ভেবেছেন বিষয়টি। আমি ব্যক্তিগতভাবে সেটাই মনে করি।

তিনি বলেন, ক্ষমতায় ও সরকারে একসঙ্গে থাকার কারণে অনেকেই সাংগঠনিক রাজনীতিতে সেভাবে ভূমিকা রাখতে পারেননি। যার প্রভাব দলে পড়েছে। কিন্তু দলীয় প্রধান আওয়ামী লীগকে সেই প্রভাব থেকে মুক্ত করতে চান। ফলে তিনি (শেখ হাসিনা) বিষয়টি ভাবছেন। আমরা সেভাবেই দল গোছানোর কাজ করছি।

দলীয় প্রধানের নির্দেশ অনুযায়ী দল গোছানোর বিষয়ে জেলা উপজেলা পর্যায়ে দলকে সুসংগঠিত করার বার্তা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে জানিয়ে আব্দুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে দলের নেতাকর্মীদের ইচ্ছা গুরুত্ব পাবে। এছাড়া দলীয় প্রধান যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেভাবেই দলের নেতৃত্ব নির্বাচন হবে। সারাদেশে আমরা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সেভাবেই বিবেচনা করেছি। দলকে সারাদেশে সংগঠিত করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের ত্যাগীরা মূল্যায়িত হবে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ছাত্রজীবনে রাজপথের আন্দোলনে ভূমিকা রাখা অনেকেই রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন, তবে আওয়ামী লীগে মূল্যায়িত হয়নি। তাদেরকে এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে মূল্যায়ন করা হবে। দলের আগামী নেতৃত্ব সেভাবেই ঠিক করা হবে।

তিনি বলেন, দলে ত্যাগ ও তিতিক্ষা বরণ করে যারা রাজনীতি করেছে তাদের বিষয়ে আওয়ামী লীগ সবসময়ই ইতিবাচক মনোভাব রাখে। আওয়ামী লীগে এখন ত্যাগীদের সময়। পঁচাত্তর পরবর্তীতে যারা দলের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন কিন্তু দলীয় কোন সুবিধা পাননি সারাদেশে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে তারাই আসছেন। এবারো তার ব্যত্যয় হবে না।





ads






Loading...