খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সারাদেশে বিএনপির মানববন্ধন

মানবকণ্ঠ
বিএনপি - মানবকণ্ঠ।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৫৩

দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার কারামুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে দুদিনের কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) শেষ দিনের মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি।

আজ সারাদেশে এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেবেন দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

দলটির নীতিনির্ধারক সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার কারাবন্দীত্বের প্রায় ২০ মাস পরেও তাকে আইনিভাবে কারামুক্ত করতে না পারা ও তাঁ​র মুক্তির দাবিতে কোনো আন্দোলন গড়তে না পারায় দলটি বিব্রত। এ নিয়ে সরকারি দল থেকেও প্রায়ই খোঁচা শুনতে হচ্ছে। এই অবস্থায় ছাত্রদলের কমিটি গঠনের পাশাপাশি মাঠের রাজনীতিতেও কর্মসূচি জোরালো করছে বিএনপি।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী জানান, বুধবার ও বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগরে ও বৃহস্পতিবার সারা দেশে মানববন্ধন করবে বিএনপি। এরপর ২১ সেপ্টেম্বর সিলেট, ২৬ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ ও ২৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে সমাবেশের কর্মসূচি রয়েছে। পর্যায়ক্রমে রংপুরসহ অন্যান্য জেলায়ও সমাবেশের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন দলটির নেতারা।

মানববন্ধন উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি। নেত্রীর মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে বড় জমায়েতের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন দলটির নেতাকর্মীরা। কেন্দ্রীয় বিএনপির আয়োজনে রাজধানীতে আজকের এ মানববন্ধনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

গত রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তার সুচিকিৎসার দাবিতে ১২ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) সারা দেশে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে।

এদিকে ১৪ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ছাত্রদলের সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে। বিএনপির নীতিনির্ধারকেরা মনে করছেন, স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় ভোটাভুটিতে ছাত্রদলের মূল নেতৃত্ব দাঁড় করানো গেলে সংগঠনে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। পাশাপাশি আগামী দিনে আন্দোলন-সংগ্রামে এর ফল পাওয়া যেতে পারে। কারণ, অছাত্র ও বয়স্করা নেতৃত্বে চলে আসায় ছাত্রদলকে নিয়ে একটা বন্ধ্যত্ব তৈরি হয়েছে বলে প্রচার আছে।

সম্মেলন সামনে রেখে প্রার্থীরা ব্যস্ত প্রচার-প্রচারণায়। সম্ভাব্য প্রার্থীদের বেশির ভাগই এখন রয়েছেন ঢাকার বাইরে। ডাকসু নির্বাচনের পর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অবাধ প্রবেশাধিকার পাওয়া ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা প্রতিদিন সন্ধ্যায় আড্ডা দিতে জড়ো হন ক্যাম্পাসের টিএসসি ও হাকিম চত্বর এলাকায়। তাঁদের আলোচনার একমাত্র বিষয় সংগঠনের সম্মেলন। কিন্তু এরই মধ্যে সংগঠনটির নির্বাচন নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সমন্বয়ে গঠিত নির্বাচন পরিচালনা কমিটিসহ বিভিন্ন কমিটির কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছে। তাঁরা পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে নানাভাবে ভোট চাইছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে গত শনিবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও আলোচনা হয়।

এই প্রেক্ষাপটে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে ছাত্রদলের নির্বাচন পরিচালনাসংশ্লিষ্ট নেতারা যৌথ বিবৃতি দেন। তাতে বলা হয়, তাঁরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ করছেন যে কিছু প্রার্থী বা তাঁদের সমর্থকেরা নির্বাচনী প্রচারণায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাবেক কোনো কোনো ছাত্রনেতার নাম ও বিভিন্ন কর্মসূচির পুরোনো ছবি ব্যবহার করে নিজেদের অনুকূলে প্রচারণা চালাচ্ছেন, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

বিবৃতিতে ছাত্রদলের সম্মেলনসংশ্লিষ্ট কমিটির সাবেক কোনো ছাত্রনেতার নাম কোনোভাবেই ব্যবহার না করার আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, অন্যথায় দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হবে।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads




Loading...