বাজেটে কমতে পারে যেসব পণ্যের দাম



  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৩ জুন ২০১৯, ১৭:৪৪

জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম কমানোর প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এবারের বাজেটের আকার ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

যেসব পণ্যের দাম কমছে: চিকিৎসা সরঞ্জাম, রাইস কুকার, ওয়াশিং মেশিন, ব্লেন্ডার, খেলনা, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, এলইডি টেলিভিশন, প্লাস্টিক রিসাইক্লিং, কৃষি যন্ত্রপাতি, পাউরুটি ও বনরুটি, হাতে তৈরি কেক ও বিস্কুট, দেশে উৎপাদিত লিফট, রেফ্রিজারেটর, এসি, মোটর, অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র, রফতানিমুখী পোশাক, ক্যান্সারের ওষুধ।

আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের আকার ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে আগামী বাজেট ১২ দশমিক ৬১ শতাংশ বড়। আগামী ৩০ জুন এই বাজেট পাস হবে।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আহরণের যে লক্ষ্যমাত্রা (৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা) ধরা হয়েছে তা দেশের মোট জিডিপির ১৩ দশমিক ১ শতাংশ। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিয়ন্ত্রিত কর ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা, এনবিআর-বহির্ভূত কর ১৪ হাজার ৫০০ কোটি, কর ব্যতীত প্রাপ্তি ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা।

চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা, যেখানে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে অবশ্য আয়-ব্যয়ের হিসাব কিছুটা কমে আসে। সংশোধিত বাজেটের আকার ৪ লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা, যেখানে রাজস্ব আয়ের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬১৩ কোটি টাকা।

আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। ঘাটতি অর্থায়নে প্রস্তাবিত বাজেটে বৈদেশিক উৎস (অনুদানসহ) থেকে ৬৮ হাজার ১৬ কোটি টাকা এবং অভ্যন্তরীণ উৎস হতে ৭৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা সংগ্রহের কথা বলা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এফএইচ




Loading...
ads




Loading...