এক পয়েন্ট পেলেই আবাহনীর ইতিহাস

বিকেএসপি'তে জাতীয় দলের ফুটবলারদের সঙ্গে অনুশীলনে কোচ জেমি ডে - ছবি: বাফুফে


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৮ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৫৬

ইতিহাসের সামনে আবাহনী। তার জন্য চাই একটিমাত্র পয়েন্ট। আর সেই এক পয়েন্টই এনে দিতে পারে আবাহনীকে ইতিহাস। আজ উত্তর কোরিয়ার এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ ক্লাবের বিপক্ষে আবাহনীর চাই ড্র। তাহলেই তারা উঠে যাবে ইন্টারজোনের প্লে অফের ফাইনালে।

আবাহনীকে এমন দিগন্ত প্রসারিত সুযোগ করে দিয়েছে ঘরের মাঠে ৪-৩ গোলের জয়। উত্তর কোারিয়ার এই ক্লাবের বিপক্ষে আবাহনী যে জয়ী হয়ে মাঠ ছাড়বে তা ম্যাচ শুরুর আগে খুঁজতে গেলে একজনও পাওয়া যেত না। কিন্তু খেলা শুরু হওয়ার পর আবাহনীর নান্দনিক নৈপুণ্যের সামনে আর পেরে উঠেনি অতিথিরা। সাত গোলের রোমাঞ্চে শেষ হাসি হাসে আবাহনী।

৪-৩ গোলে আবাহনী জিতলেও ছেড়ে কথা বলেনি এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ ক্লাবটি। দুইবার পিছিয়ে পড়ে তারা দুইবার সমতা এনেছিল। পরে আবাহনী ২ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে গেলে পরে আর তারা ম্যাচে ফিরতে পারেনি। তবে একটি গোল পরিশোধ করে আবাহনীর জালে তৃতীয় গোল দিতে পেরেছিল। আর এই ব্যবধান কমিয়ে আনতে পারাতেই আজকে নিজেদের মাঠে তারাই ফেভারিট।

পিয়ংইয়ংয়ে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বেলা তিনটায়।

নিজেদের মাঠ বলেই কিন্তু এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ চাইবে ম্যাচকে নিজেদের করে নিতে। ম্যাচ জেতার পাশাপাশি গোল ব্যবধানও বাড়িয়ে নিতে। একটি দিক দিয়ে অবশ্য তারা এগিয়ে আছে। আবাহনীর বিপক্ষে তারা তিনটি গোল দিতে পেরেছিল। আজ যদি তারা এক গোলেও জিতে তাহলে দুই দলের পয়েন্ট ও গোল ব্যবধান সমান হবে। তখন আবাহনীর মাঠে খেলতে এসে দেয়া তিন গোলই তাদের পাল্লাভারি করে তুলবে। যে কারণে পিয়ংইয়ং থেকে পয়েন্ট নিয়ে ফেরা আবাহনীর জন্য কঠিনই হবে।

তবে আবাহনীর পর্তুগালের কোচ মারিও লেমস ঢাকায় পাওয়া জয়কে আত্মবিশ্বাস হিসেবেই দেখছেন। উত্তর কোরিয়ার গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘কঠিন ম্যাচ হবে। এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ খুবই শক্তিশালী দল। এই টুর্নামেন্টে তারা নিজেদের মাঠে কোনো ম্যাচ হারেনি। জয় মানসিক শক্তি বাড়ায়। ঢাকায় জেতার পর আমাদের আত্মবিশ্বাসও বেড়ে গেছে। আমরা ঢাকায় চার গোল করেছি। কিন্তু এখানে গোল করা কঠিন হবে। তার পরও আমরা ফাইনালে খেলতে চাই। পিয়ংইয়ং থেকে ভালো একটা ফল নিয়ে দেশে ফিরতে চাই।’

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads




Loading...