বিশ্বকাপ ক্রিকেট

বৃষ্টি কেড়ে নিলো লাল-সবুজের সুখের স্বপ্ন

বৃষ্টি ও ঝড়ের তাণ্ডবে স্টেডিয়াম থেকে বের হয়ে আসা বাংলাদেশের সমর্থকেরা


সবার দৃষ্টি থাকার কথা ২২ গজের দিকে। কিন্তু সবাই সে দিকে পৃষ্ঠদেশ দিয়ে রেখেছেন! এ সব দর্শক কিন্তু লাল-সবুজের জার্সিধারী। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের খেলা। তা’হলে দর্শকরা কী মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন! আসলে তা নয়। ক্রিকেটের আজন্ম শক্র বৃষ্টি দর্শককে পৃষ্ঠদেশ দেখাতে বাধ্য করেছে।

অবশ্য এর পেছনে যে শুধু বৃষ্টিই দায়ী তা কিন্তু নয়। একে তো নির্দিষ্ট সময়ে খেলা শুরু হয়নি, আবার হচ্ছে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। সাথে কনকনে ঠাণ্ডা বাতাস। বৃস্টল কাউন্টি গ্রাউন্ডের ছোট স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে নেই কোন আচ্ছাদন। উইকেটের সামনে-পেছনে ড্রেসিং রুম আর প্যাভিলিয়নের সামনেই আছে নিজেদের প্রকৃতির হাত থেকে বাঁচানোর সামান্য কিছু জায়গা। সেখানেই অগণিত বাংলাদেশি দর্শক আশ্রয় নিয়েছেন। কেউ কেউ আবার বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমের সামনে। জটলা সেখানেই বেশি। সবার দৃষ্টি ড্রেসিং রুমের দিকে। জোড়া জোড়া চোখ খুঁজছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের। এরই মাঝে হঠাৎ বেলকনিতে এসে দাঁড়ান সাব্বির। দর্শকদের সে কি উল্লাস। সাব্বির সাব্বির বলে আওয়াজ তুলেন। সাব্বিরও তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে হাত নাড়ছেন। কারো কথার জবাব দিচ্ছেন। জানতে চাইছেন খেলা হবে কি না? হলে তিনি খেলবেন কি না। সাব্বির ছোট্ট করে জবাব দিচ্ছেন। তিনি কিছুই জানেন না। সাব্বিরকে দেখে তৃপ্ত হওয়ার পর দর্শকরে আবদার ছুটে যায় দলের বাকি খেলোয়াড়দের জন্য। বিশেষ করে সাকিবকে দেখতে। কিন্তু সাকিব আসবেন কি করে। তখনো যে বাংলাদেশ দলের সবাই স্টেডিয়ামে আসেননি। পুরো বাংলাদেশ দল স্টেডিয়ামে আসে বেলা একটার পর।

বৃস্টলে খেলা না হওয়াতে দর্শকদের আফসোসের শেষ ছিল না। ২০১০ সালের পর আবার বৃস্টলে বাংলাদেশ খেলতে এসেছে। সেবার স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে ৫ রানে হারিয়ে জয়ের উচ্ছ্বাসে ভাসিয়েছিল সবাইকে। এবারো সবাই আশার তরি ভাসিয়েছিলেন জয়ের স্বপ্নে বিভোর হয়ে। কিন্তু বেরসিক বৃষ্টি সব কিছু ওলট-পালট করে দিয়ে যায়। সেই সাথে বাংলাদেশ দলের সেমিতে খেলার সম্ভাবনাকেও অনেক ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে। প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা হওয়াতে এই বৃস্টলে আবারো বাংলাদেশ হাসবে এই স্বপ্নে বিভোর ছিলেন লাল-সবুজের সমর্থকরা। কারণ সেমিতে যেতে বাংলাদেশ যে পাঁচটি দলকে টার্গেট করেছে শ্রীলঙ্কা ছিল তার একটি। এখানে বাংলাদেশ টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জিতবে, এগিয়ে যাবে সেমির পথে। হাসিমুখে মাশরাফিদের বরন করে, সুখের পায়রা উড়িয়ে দেবেন আকাশে। দল যাবে টুনটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারাতে। কিন্তু তা আর হলো কোথায়? অথচ এই ম্যাচকে ঘিরে বৃস্টল ও এর আশে-পাশে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের সে কি প্রস্তুতি ছিল। একে তো নয় বছর পর, তারপর আবার সেমির প্রশ্নে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। বার্ষিক পরীক্ষার প্রস্তুতির মতো প্রবাসীদের প্রস্তুতির ঘাটতি ছিল না।

বৃস্টলে বাংলাদেশের কমিউনিটির অতি পরিচিত মুখ শহিরউদ্দিন চৌধুরী। সবার কাছে খুশি ভাই নামেই পরিচিত। তার বাসা থেকে হাঁটা দূরত্বে স্টেডিয়াম। স্ত্রী ও ভাতিজাকে নিয়ে তিনি খেলা দেখার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিলেন। কিন্তু আবহাওয়া পূর্বাভাস তার মনে আগেই বদ্ধমূল হয়ে গিয়েছিল যে খেলা হবে না। স্টেডিয়াম কাছাকাছি হওয়াতে ম্যাচ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হলে তবেই স্টেডিয়ামে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু আবেগী মন ত আর মানতে চায় না। তাইতো বৃষ্টি মাথায় নিয়েই তিনি সবাইকে নিয়ে চলে আসেন স্টেডিয়ামে। কিন্তু প্রচণ্ড বাতাস আর গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি ষাটোর্ধ বাংলাদেশিকে স্টেডিয়ামে বসে থাকতে দেয়নি। পরে চলে আসেন বাসায়। এবার সিদ্ধান্ত নেন যদি আর খেলা শুরুর সিদ্ধান্ত হয়, তবেই আসবেন স্টেডিয়ামে। কিন্তু সেই খেলা শুরু হয়নি। স্থানীয় সময় বেলা ২টার ( বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭ টার) কিছুক্ষণ আগে খেলা পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। এই সংবাদ জানতে পেরে মনটাই ভারাক্রান্ত হয়ে যায় শহিরউদ্দিন চৌধুরীর। তিনি বলেন, ‘খুবই খারাপ লাগছে। কিন্তু প্রকৃতির উপরত আর কারো হাত নেই।’

বার্মিংহামে বাংলাদেশ ২ জুন ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ খেলবে। কিন্তু তারপরও বৃস্টলে সবচেয়ে বেশি দর্শক এসেছিলেন বার্মিংহাম থেকেই। দশে ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মিসবাউর রহমান। তিনি আগের দিনই চলে এসেছিলেন বৃস্টলে। সকাল থেকেই হাজির স্টেডিয়ামে। পরিত্যক্ত ঘোষণা না হওয়ার পর্যন্ত ছিলেন স্টেডিয়ামে। এভাবে খেলা না হওয়াতে তিনি কি বলবেন ভেবে পাচ্ছিলেন না। তার মনে এখন শঙ্কা ১ পয়েন্ট হারানোর ফলে বাংলাদেশ সেমিতে খেলতে পারবে কি না। খুবই ঝুঁকির মধ্যে পড়ে গেছে বাংলাদেশ। একই রকম হতাশ বার্মিংহাম আওয়াম লীগের যুগ্ম সম্পাদক কামাল আহমেদ। তিনিও সকালে মাঠে ঢুকে শেষ পর্যন্ত ছিলেন। তার বিশ্বাস বাংলাদেশ এই ঘাটতি কাটিয়ে উঠবে বড় কোন দলকে হারিয়ে। তবে মিসবাউর রহমান ও কামাল আহমেদের মতো আবার অতোটা সময় অপেক্ষা করেননি লন্ডন থেকে আসা যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান। তিনি আবহাওয়ার পূর্বাভাস জেনে খেলা হবে না নিশ্চিত হয়েই মাঠে আর না আসে লন্ডন ফিরে যান।

এই বৃস্টলের যে আকাশ নিচে ৯ বছর আগে বাংলাদেশ তার সমর্থকদের সুখের রাজ্যে ভাসিয়েছিল, সেই বৃস্টলের আকাশেই এবার বৃষ্টির হতাশায় ভারাক্রান্ত টাইগার সমর্থকেরা।

মানবকণ্ঠ/আরএ



Loading...
ads


Loading...