কক্সবাজারে ভারী বর্ষণ, পাহাড়ে ঝুঁকিতে ৪০ হাজার মানুষ

- ফাইল ছবি।


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৫৫

কক্সবাজারে বিভিন্ন স্থানে পাহাড়ধসে ঘরবাড়ি বিলীন হওয়ার পাশাপাশি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে সড়ক যোগাযোগ। হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে। এরকম পরিস্থিতিতে বিভিন্ন পাহাড়ে ঝুঁকি নিয়ে অন্তত ৪০ হাজার মানুষ বসবাস করছে যাদেরকে সরিয়ে আনা যাচ্ছে না।

জেলা প্রশাসন ও পৌরসভা কার্যালয় সূত্র জানায়, পৌরসভার অভ্যন্তরে ১২টির বেশি পাহাড়ে ভূমিধসের ঝুঁকিতে আছে অন্তত ৪০ হাজার মানুষ। এসব পাহাড়ে ১২ হাজারের বেশি ঘরবাড়ি তৈরি করে বসতি করছে দুই লাখের বেশি মানুষ। এর মধ্যে অন্তত ৮০ হাজার মিয়ানমারের অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, ভারী বর্ষণে ভূমিধসে প্রাণহানি ঘটতে পারে, তাই লোকজনকে পাহাড় ছাড়তে অনুরোধ জানিয়ে এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। স্বেচ্ছায় তারা সরে না এলে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, পাহাড় কাটার মাটি বৃষ্টির পানির সঙ্গে ভেসে এসে শহরের নালা-কালভার্ট ভরাট হচ্ছে। ফলে বৃষ্টির পানিতে সয়লাব হবে শহরের অলিগলি। এতে মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের হিমছড়িতে পাহাড়ধসের ঘটনায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার পৃথক পাহাড়ধসের ঘটনায় টেকনাফে মেহেদী হাসান (১১) ও আলিশা (৫) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বিলীন হয় তিনটি ঘর। এই ঘরেই মাটিচাপায় মৃত্যু হয় দুই শিশুর। পরিবেশ সংগঠনের তথ্য অনুযায়ী, কক্সবাজার পৌরসভার অন্তত ১২টি পাহাড়ে বসবাস করছে আড়াই লাখের বেশি মানুষ।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads




Loading...