বাড়তি আয়ের পাশাপাশি সেলিব্রেটি হিসেবে খ্যাতি অর্জন



  • মানবকণ্ঠ ডেস্ক
  • ২০ আগস্ট ২০১৯, ১৭:২৮

মানুষের আয়ের নানা উৎস হতে পারে। চাকরি, ব্যবসা, সেবা বা কোনো সৃজনশীল কাজ। এর যে কোনো উপায়ে আয় করা সম্ভব। কিন্তু এমন কিছু আয়ের উৎস আছে যা সাধারণ মানুষ কখনো আয়ের উৎস হিসেবে বিবেচনা করে না। অথচ এই জাতীয় কাজে কোনো শারীরিক শ্রম নেই। আজকের ফিচারে এমন কয়েকটি আয়ের উৎসের সম্পর্কে থাকছে আলোচনা, যা ব্যবহার করে খুব সহজে বাড়তি রোজগার করা যাবে, একইসঙ্গে হয়ে উঠতে পারবেন সেলিব্রেটি।

মতামত : দৈনন্দিন জীবনে ঘটে চলা সব ঘটনা, চারপাশে ঘিরে থাকা সব পরিবেশ প্রতিবেশ নিয়ে আমাদের প্রত্যেকেরই নিজস্ব মতামত আছে। অনেক সময় ব্যক্তিবিশেষের মতামত সুনির্দিষ্ট বিষয়ে অন্যদের সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগিতা করে। চাইলে নিজের মতামত বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। ভাবছেন মতামত আবার কিভাবে বিক্রি করা যায়? মতামত বিক্রির কোনো হাট আছে কি? আছে! বিশ্বব্যাপী মতামত বিক্রি করার সবচেয়ে বড় হাট আছে অনলাইনে। বিশ্বব্যাপী অসংখ্য ওয়েবসাইট আছে, যারা বিভিন্ন বিষয়, স্থান, জিনিসপত্র, খাবার ইত্যাদির রিভিউ প্রকাশ করে থাকে। চাইলে নিজের চাকরি বা ব্যবসার পাশাপাশি দৈনন্দিন জীবনের নানা অভিজ্ঞতার আলোকে বিভিন্ন বিষয়ের রিভিউ লিখতে পারেন আর আয় করতে পারেন। যেমন ফুডট্রিপস নামে বাংলাদেশি একটি ওয়েবসাইট আছে। যেখানে আপনি বিভিন্ন রেস্টুরেন্টের খাবার খেয়ে তার রিভিউ লিখতে পারেন। নিজের প্রয়োজনে আপনজন, আত্মীয়-স্বজন বা পরিবারের লোকদের নিয়ে রেস্টুরেন্টে খাবেন। তারপর সেই খাবার নিয়ে মতামত ফুডট্রিপসে লিখবেন। এমনভাবে লিখবেন যেন ওই খাবার সম্পর্কে জানতে অন্যদের সহজ হয়। সাইটে প্রকাশিত আটিকেলের জন্য সম্মানি দেয়া হয়। বাংলাদেশি আরো একটি ওয়েবসাইটে আছে, যার নাম ট্রিপ জোন। নিজের কাজের প্রয়োজনে, অথবা অবকাশ যাপন করতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নিশ্চয়ই আপনি ভ্রমণ করেন? এই ভ্রমণ আপনার চাকরি নয়। শুধুমাত্র ভালো মুহূর্ত পার করার জন্য এবং অবকাশ যাপনের জন্য মানুষ ভ্রমণ করে। কিন্তু চাইলে ভ্রমণ থেকে ফিরে সে অভিজ্ঞতা লিখেও অর্থ উপার্জন করতে পারেন। সুতরাং যে কোনো বিষয়ে যদি গভীর অন্তর্দৃষ্টি থাকে তবে আজই সেসব বিষয় নিয়ে পত্রপত্রিকায় রিভিউ লেখা শুরু করে দিন, আর চাকরি বা ব্যবসার পাশাপাশি বাড়তি কিছু অর্থ উপার্জন করুন।

পণ্য রিভিউ : প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনের সঙ্গে সঙ্গে কেনাকাটা এখন অনেকটাই অনলাইন নির্ভর হয়েছে। তাছাড়া বিশ্বব্যাপী সহজে কেনাবেচার বাজার উš§ুক্ত হয়। সাধারণত অনলাইন থেকে কোনো পণ্য কেনার আগে ক্রেতারা উক্ত পণ্য সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য জানতে চায়। পণ্য বিক্রয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সব সময় সব পণ্যের বিস্তারিত তথ্য দেয়া কঠিন হয়ে পড়ে। তাই তারা ফ্রিল্যান্সার পণ্য রিভিউকারীদের উপর নির্ভর করে। আপনি যদি এ ব্যাপারে আগ্রহী হোন তবে নির্দিষ্ট কিছু ওয়েবসাইটে বিভিন্ন পণ্যের রিভিউ লিখে বাড়তি রোজগার করতে পারেন। এ কাজের জন্য আপনাকে কোনো বাঁধাধরা নিয়ম অনুসরণ করতে হবে না অর্থাৎ পণ্যের রিভিউ দেয়ার সংখ্যা নির্ধারণ করে দেয়া হবে না। মন চাইলে লিখবেন, না চাইলে লিখবেন না। নিজের কাজের পাশাপাশি অবসরে বাড়িতে বসেই এই কাজ করে বাড়তি অর্থ রোজগার করতে পারেন। সুতরাং পছন্দের পণ্য সম্পর্কে আজই রিভিউ লিখতে শুরু করুন আর বাড়তি অর্থ রোজগার করুন।

কেনাকাটার দক্ষতা : ইন্টারনেটে বিক্রি করার দক্ষতাগুলোর মধ্যে কেনাকাটার দক্ষতা অন্যতম। অনলাইনে পণ্য বিক্রি করে প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের গ্রাহকদের অভিজ্ঞতা জানতে চায় এবং এই অভিজ্ঞতা শেয়ার করার কারণে তারা মূল্য দেয়। সুতরাং কেন এই সুযোগটি নিবেন না? বিশেষ করে বাড়িতে থাকা মায়েরা কেনাকাটার দক্ষতা, অভিজ্ঞতা শেয়ার করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এর জন্য বিশেষ কোনো সময় সূচি মেনটেন করার দরকার নেই। কোনো পণ্য কেনার এবং ব্যবহার করার অভিজ্ঞতা লিখে পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আপনি খুব সহজেই রোজগার করতে পারেন। এর জন্য ইন্টারনেটে বিভিন্ন সাইট অনুসন্ধান করতে পারেন। তাছাড়া বিশেষ কিছু প্রতিষ্ঠান অভিজ্ঞতা শেয়ার করার জন্য অ্যাপসও সরবরাহ করে থাকে।

অনলাইনে আলোচনা : অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ এবং আলোচনার মাধ্যমে আপনি রোজগার করতে পারেন।
এক্ষেত্রে ইউটিউব হতে পারে একটি চমৎকার প্ল্যাটফর্ম। রাষ্ট্রীয় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা, ক্যারিয়ার এবং এ সম্পর্কিত বিষয়ে শিক্ষার্থীদের পরামর্শ, বই ও চলচ্চিত্র রিভিউ এবং সফল মানুষের সাক্ষাৎকার নিয়ে ভিডিও তৈরি করতে পারেন। যা ইউটিউবে প্রচারের মাধ্যমে ইউটিউব মনিটাইজেশন থেকে প্রচুর অর্থ রোজগার করতে পারেন। ব্যবসা বা চাকরির পাশাপাশি এই কাজ অধিক সম্মান এবং অর্থ এনে দিবে। এমন কি একবার তৈরি করা ভিডিও থেকে সারাজীবন আয় করতে পারবেন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে 

 




Loading...
ads




Loading...