লেবানন থেকে অবৈধ প্রবাসীদের দেশে ফেরার সুযোগ


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:৫০

কোন জেল জরিমানা ছাড়া, শুধুমাত্র এক বছরের জরিমানা ও বিমান টিকিটসহ আবেদন করেই দেশে ফেরার সুযোগ পাচ্ছেন লেবাননে বসবাসরত কাগজপত্রবিহীন অবৈধ প্রবাসী বাংলাদেশীরা। আগামী ১৫, ১৬, ১৭ সেপ্টেম্বর (রোববার, সোমবার ও মঙ্গলবার) লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাসে অবৈধ প্রবাসীদের আবেদন গ্রহণ করা হবে। পুরুষদের জন্য ২৬৭ মার্কিন ডলার ও মহিলাদের জন্য ২০০ মার্কিন ডলার জরিমানা ও বিমান টিকিটসহ আবেদন ফরম জমা দিতে হবে।

গত শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় দূতাবাসে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার।

রাষ্ট্রদূত বলেন, এই কর্মসূচী চালু থাকবে আগামী ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত। ৩টি স্তরে প্রবাসীরা তাদের আবেদন করতে পারবেন। সেপ্টেম্বরে যারা আবেদন করতে পারবে না, আগামী নভেম্বর ও ডিসেম্বরে তারা ফের আবেদন করতে পারবেন।

তিনি জানান, আগামী নভেম্বর ডিসেম্বরে যেহেতু অবৈধ বাংলাদেশী প্রবাসীদের বৈধ হবার একটি সুযোগের সম্ভাবনা রয়েছে, সে দিক চিন্তা করেই এই ৩ স্তরে আবেদন জমা নেয়া হবে। যাতে বৈধ হওয়ার সুযোগে যারা বৈধ হতে না পারবেন, তারাও যেন দেশে ফেরার সুযোগটি গ্রহণ করতে পারেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, লেবাননে উচ্চ পর্যায়ে দীর্ঘদিন আলোচনার মধ্যে দূতাবাস এই সুযোগ পেতে সক্ষম হয়েছে। যার ফলে প্রবাসীরা কোন রকম জেল ও বড় অংকের জরিমানা ছাড়াই দেশে ফেরতের সুযোগ পাচ্ছেন। তবে যাদের নামে চুরি, মাদক ও ফৌজদারি মামলা বা লেবাননের কোর্টে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে তারা এই কর্মসূচীর আওতায় পড়বে না। তবে যাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ রয়েছে তারা যদি দেশে ফেরত যেতে দূতাবাসের সাহায্য কামনা করেন, হাতে নেয়া কর্মসূচী শেষ হলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে তাদের অবশ্যই সহযোগিতা দেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, লেবাননের আইন অনুযায়ী দূতাবাসের মাধ্যমে জেনারেল সিকিউরিটি থেকে ক্লিয়ারেন্স গ্রহণ করতে হয়। তাই যারা দেশে যাবার জন্য আবেদন করবেন, ক্লিয়ারেন্স পাবার পর তাদের অবশ্যই দেশে ফেরত যেতে হবে। অন্যথায় লেবাননের জেনারেল সিকিউরিটি তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সেক্ষেত্রে দূতাবাসের করণীয় কিছু থাকবেনা বলেও তিনি যোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে দেশের ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ এবং কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন, এসময় তাদের বিভিন্ন প্রশ্নেরও জবাব দেন রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads




Loading...