নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন তৈয়েবুর রহমান

নিউইয়র্ক থেকে

মোঃ তৈয়েবুর রহমান (হারুন) - ফাইল ছবি।


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০৭ আগস্ট ২০১৯, ১৭:২১

আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিল ডেমোক্রেটিক প্রাইমারী নির্বাচনে ডিষ্ট্রিক্ট ২৪ কুইন্স (জ্যামাইকা, ব্রাইয়ারউড, ফ্রেস মেডোস, কিউ গার্ডেন হিল্স, পমনক ও পার্ট অফ ফ্লাসিং) থেকে প্রার্থী হচ্ছেন বিশিষ্ট কমিউনিটি এক্টিভিষ্ট মোঃ তৈয়েবুর রহমান (হারুন)। তিনি বর্তমানে কুইন্স কমিউনিটি বোর্ড ৮ এর মেম্বার এবং ১০৭ প্রিসিংটের কমিউনিটি পার্টনার।

২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত ডেমোক্রেটিক প্রাইমারী নির্বাচনে বর্তমান সিটি কাউন্সিল মেম্বার ররি ল্যান্সম্যান এর বিপরীতে তিনি ৩৮ শতাংশ ভোট পেয়েছিলেন।

তৈয়েবুর রহমান সত্তরের দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাইকোলজিতে অনার্স এবং মাষ্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। দীর্ঘ ৪ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র থাকাকালীন সময়ে তিনি ছাত্র রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন।

১৯৮৬ সালে ইমিগ্রান্ট হিসেবে নিউইয়র্কে আসার পর রিচ অর্গানাইজেশনে আট বছর ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯০ সালে ওপি ওয়ান এ আসা দুই শতাধিক নতুন ইমিগ্রান্টকে তিনি রিচ অর্গানাইজেশন চাকুরীর ব্যবস্থা করেন। এর পর ১৯৯৬ সালে তিনি নিউইয়র্ক সিটি সিভিল সার্ভিসের নির্বাচনে ডিপার্টমেন্ট অফ সোস্যাল সার্ভিসের অধীনে হিউম্যান রিসোর্স এডমিনিষ্ট্রেমনে কেস ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। দীর্ঘ দিন তিনি ফেয়ার হেয়ারিং সুপার ভাইজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। চাকুরীকালীন সময়ে তিনি বাংলাদেশী সহ সাউথ এশিয়ান কমিউনিটিকে সরকারী বেনিফিট পেতে সহায়তা করেন। এই কাজে থাকাকালীন সময়ে সরকারী খরচে তিনি সিটি ইউনির্ভাসিটি অফ নিউইয়র্কের হান্টার স্কুল অফ সোস্যাল ওয়ার্ক থেকে সোস্যাল ওয়ার্ক থিউরি ও প্রাকটিসের উপর এডভান্স গ্রাজুয়েন্ট কোর্স সম্পন্ন করেন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে

দীর্ঘ ২০ বছর চাকুরীর পর ২০১৭ সালে তিনি অবসর গ্রহণ করেন। তিনি জীবনের দীর্ঘ সময় সমাজকর্মে ব্যয় করেছেন। তিনি নিউইয়র্ক সিটি বাংলাদেশী সিভিল সার্ভিস সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি ছিলেন। এ সময়ে তিনি বেশ কয়েকটি জব ও বেনিফিট সেমিনার করে নতুন ইমিগ্রান্টদের চাকুরী এবং সরকারী বেনিফিটের তথ্য প্রদান করেন। তিনি মানিকগঞ্জ সমিতি নর্থ আমেরিকা ইন্ক এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং বর্তমান প্রধান উপদেষ্টা। দীর্ঘ দিন জ্যামাইকার দারুস সালাম মসজিদের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। জ্যামাইকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নে তিনি ১০৭ প্রিসিংটের ক্যাপ্টেন ও কমিউনিটি এফেয়ার্স পুলিশ অফিসারের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে কাজ করছেন এবং মাসিক সভায় এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরছেন। তিনি প্রত্যেক বছর রমজান মাসের আগে দায়িত্ব প্রাপ্ত অফিসারদের সাথে বসে সিকিউরিটি প্ল্যান তৈরী করেন। সকল প্রয়োজনে তাকে সর্বদা কাছে পাওয়া যায়। তিনি একজন ভদ্র ও অমায়িক স্বভাবের লোক।

ব্যক্তি জীবনে তিনি বিবাহিত এবং দুই পুত্র সন্তানের জনক। দুই ছেলেই সিটি ইউনির্ভাসিটি অফ নিউইয়র্কের জন জে কলেজ অফ ক্রিমিনাল জাষ্টিজ থেকে ব্যাচেলার ডিগ্রি লাভ করেন। বড় ছেলে মোঃ মাহফুজুর রহমান ইমরান নিউইয়র্ক স্টেট এ্যাসেম্বলী প্রোগ্রামের ডাইরেক্টর এবং ছোট ছেলে নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টে পুলিশ অফিসার হিসেবে কর্মরত আছে। তিন বাপ বেটাই কমিউনিটি সার্ভিসে নিয়োজিত। তিনি সাউথ এশিয়ান আমেরিকান ভোটার এসোসিয়েশনের সদস্য। তিনি বিগত নিউইয়র্ক স্টেট নির্বাচনে সিনেটর জন লু এবং ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী নির্বাচনে মেলিন্ডা কার্জের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করেন। সাউথ এশিয়ান কমিউনিটি থেকে তিনি একমাত্র প্রার্থী থাকলে তার নির্বাচনে জয়ী হবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী। তিনি কমিউনিটির সকলের সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করেছেন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে 




Loading...
ads




Loading...