আ.লীগের বেশিরভাগ জেলা কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ



ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। কিন্তু এ কমিটি সারাদেশের একটি জেলাতেও কাউন্সিল করতে পারেনি। হাতেগোনা দুই তিনটি কমিটির মেয়াদ থাকলেও সব ক’টিরই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। বেশ কয়েকটির মেয়াদ সাত বছরেরও বেশি হয়ে গেছে। বর্তমান কমিটি হাতেগোনা দু’-একটি জেলায় সম্মেলন করেছে। কয়েকটি জেলায় আহ্বায়ক কমিটি থেকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়েছে। দলীয় সূত্রে জানা যায়, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক জেলা ৭৮টি। এর মধ্যে ২০১৫ ও ২০১৬ সালের মধ্যেই বেশির ভাগ জেলার ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। যদিও সম্মেলনের দিন এসব জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়া হয়নি। বেশির ভাগ জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি হতে সময় লেগেছিল এক-দেড় বছর। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ মানবকণ্ঠকে বলেন, আমাদের জাতীয় কাউন্সিল অক্টোবরে হবে। আমাদের সংগঠনের নিয়ম অনুযায়ী সম্মেলনের আগে বিভিন্ন ইউনিটে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন করেই জাতীয় কাউন্সিল করা হয়। এবারো সেইভাবে করা হবে।

তৃণমূলে সম্মেলন না করার প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান মানবকণ্ঠকে বলেন, আমাদের প্রত্যকটি জেলায়-উপজেলায় কমিটি আছে। কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ বলে কোনো কথা নেই। পরবর্তী সম্মেলন না হওয়া পর্যন্ত এই কমিটিই কাজ করবে। সুতরাং দীর্ঘদিন যেখানে সম্মেলন হয় নাই, সেই জায়গাটি চিহ্নিত করে আমরা সম্মেলনের ব্যবস্থা করছি।

কবে কোন জেলার সম্মেলন হয়: বরিশাল বিভাগের বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০১৪ সালের ১৬ নভেম্বর বরগুনা স্মৃতি কমপ্লেক্স চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। সেই সম্মেলন ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছিল। একই বিভাগের ভোলা জেলায় ২০১৬ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি ঘোষণা করা হয়। পটুয়াখালীর জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালের ১৪ নভেম্বর হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়েছে ২০১৬ সালের ১৫ জুন। বরিশাল জেলা সম্মেলন ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর হলেও ২০১৬ সালে পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। ঝালকাঠি জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০১৬ সালের ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়। পিরোজপুরে আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল ২০১৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়।

ময়মনসিংহ বিভাগের জামালপুর জেলা কাউন্সিল ২০১৫ সালের ২০ মে অনুষ্ঠিত হয়। নেত্রকোনায় ২০১৪ সালে সম্মেলন হলেও ২০১৬ সালে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। শেরপুর জেলা সম্মেলন ২০১৫ সালের ১৫ মে। ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০১৬ সালে ১০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় দুই বছর পর ২০১৮ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০১৫ সালের ১৬ জুলাই অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সম্মেলন ২০১২ সালের ২৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন সভাপতি ও এম এ সালাম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। ৯ দিন পর কেন্দ্র থেকে ৭১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ২০১৩ সালে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি সংগঠনের চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সভাপতি পদ ছেড়ে দেন। এরপর কেন্দ্র থেকে উত্তর জেলার সভাপতি মনোনীত করা হয় সংগঠনের তিন নম্বর সহসভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য নুরুল আলম চৌধুরীকে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সম্মেলন দীর্ঘ ১০ বছর পর ২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এই কমিটির ঘোষণা দেন। চাঁদপুরে ২০১৬ সালের ২৬ জানুয়ারি সম্মেলন হয়। সম্মেলনের প্রায় ২২ মাস পর ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ৭৪ সদস্যের এই কমিটি অনুমোদন করেন। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা সম্মেলন ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ও কুমিল্লা উত্তর জেলা সম্মেলন ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ অনুষ্ঠিত হয়। ফেনী জেলা সম্মেলন ২৫ ডিসেম্বর ২০১২ সালে এবং ল²ীপুর জেলা সম্মেলন ২০১৬ সালের ৩ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়। নোয়াখালী জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালে ১৫ সেপ্টেম্বর এবং কক্সবাজার জেলা সম্মেলন ২৮ জানুয়ারি ২০১৬ অনুষ্ঠিত হয়। সেই সম্মেলনে অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফাকে সভাপতি ও মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যানকে সাধারণ সম্পাদক করে আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। একই বছর ১৩ অক্টোবর দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ৭১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ও ২১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ অনুমোদন করেন। রাঙ্গামাটি জেলা সম্মেলন ২০১০ সালে অনুষ্ঠিত হলে ২০১২ সালের ৮ ডিসেম্বর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পর পূর্ণাঙ্গ কমিটি আত্মপ্রকাশ করে। ঢাকা বিভাগের টাঙ্গাঈল জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২০১৫ সালের ১৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে সভাপতি পদে ফজলুর রহমান খান ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহেরের নাম ঘোষণা করা হয়। ঢাকায় ২০১৬ সালে ২০ মার্চ অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির এক সভায় দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্যর কমিটির অনুমোদন করেছেন। কিশোরগঞ্জ জেলা সম্মেলন ২০১৬ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়। মানিকগঞ্জে ২০১৬ সালের ১৬ জানুয়ারি, মুন্সীগঞ্জে ২০১৪ সালের ২১ জুন, নরসিংদী ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি, রাজবাড়ী ২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর, শরীয়তপুর ২০১৬ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি, ফরিদপুর ২০১৬ সালের ২২ মার্চ সম্মেলন হয়। গাজীপুর ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবর, গোপালগঞ্জ জেলা সম্মেলন ২০১৫ সালের ১১ নভেম্বর, ২০০২ সালের ২৭ মার্চ ঢাকার সোহাগ কমিউনিটি সেন্টারে ৬৩ সদস্যের নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ওই আহ্বায়ক কমিটির ৩ মাসের মধ্যে সম্মেলন করে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও সাড়ে ১৪ বছরেও তা পূর্ণাঙ্গ হয়নি। ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়। মাদারীপুর জেলা কমিটি ২০১৩ সালে করা হলে তার সম্মেলন কয়েক বছর আগে হয়েছিল। রংপুর বিভাগের পঞ্চগড় জেলা সম্মেলন ২০১২ সালের ২৪ ডিসেম্বর হলেও ২০১৫ সালের ৮ জানুয়ারি পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়। ঠাকুরগাঁও জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালের ১৬ অক্টোবর, দিনাজপুর জেলা সম্মেলন ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হয়। রংপুরে ২০০৮ সালে এবং কুড়িগ্রাম ২০১৩ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি সম্মেলন হয়েছে। গাইবান্ধা জেলা সম্মেলন ২০১৬ সালের ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজশাহী বিভাগের সিরাজগঞ্জ জেলা সম্মেলন ২০১৫ সালের ৮ জানুয়ারি, নওগাঁ ২০১৪ সালের ২৪ ডিসেম্বর সম্মেলন, নাটোর ২০১৪ সালের ২ ডিসেম্বর, জয়পুরহাট জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালের ৯ নভেম্বর, বগুড়া জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালের ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হলেও ২০১৬ সালের ১৭ অক্টোবর কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। খুলনা বিভাগের খুলনা জেলার সম্মেলন ২০১৪ সালে, মেহেরপুর জেলা ২০১৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি, নড়াইল ২০১৫ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি, সাতক্ষীরা ২০১৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি, মাগুরা ২০১৫ সালের ৮ মার্চ, কুষ্টিয়া জেলা সম্মেলন ২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বর, ঝিনাইদহ ২০১৫ সালের ১৫ মার্চ, যশোর ২০১৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি, বাগেরহাট ২০১৫ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ও চুয়াডাঙ্গা ২০১৫ সালের ২ ডিসেম্বর জেলা সম্মেলন করা হয়। সিলেট বিভাগের সম্মেলন ২০১৭ সালের ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মৌলভীবাজার জেলা সম্মেলন ২০১৭ সালের ২৮ অক্টোবর হয়েছে। হবিগঞ্জ জেলা সম্মেলন ২০১৩ সালে ২৫ জুন ও ৬ মাস পর পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়। ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৮ সালের ১৫ মার্চ পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়া হয়।

মানবকণ্ঠ/এএম



Loading...
ads

Loading...